স্বামী সুসিদ্ধানন্দ সরস্বতী মহারাজের আবির্ভাব উদ্যাপন

20

শ্রী শ্রী গোমদন্ডী যোগাশ্রমের আয়োজনে চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক জে, এম, সেন হলে ১, ২ ও ৩ জানুয়ারি উদযাপিত হলো আশ্রমের দীক্ষাচার্য ও মঠাধ্যক্ষ স্বামী সুসিদ্ধানন্দ সরস্বতী মহারাজের ৫৬ তম আবির্ভাব মহোৎসব। অনুষ্ঠান সূচীর মধ্যে ছিল- ৫৬টি মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে মহোৎসবের শুভারম্ভ। কর্মসূচির মধ্যে ছিলÑ জাতীয় সংগীত ও বৈদিকমন্ত্র আবৃত্তি সহকারে জাতীয় পতাকা এবং গৈরিক ধ্বজা উত্তোলন, শীতবস্ত্র বিতরণ, রক্তদান, অন্নদান, ভাগবত পাঠ, পালা কীর্তন, ধর্মীয় সঙ্গীতাঞ্জলি, ধর্মসভা, পঞ্চদেবতার পূজা, বিশ্বশান্তি যজ্ঞ, শ্রীগীতা পূজা ও শ্রীগীতা পারায়ণ, মঙ্গল শোভাযাত্রা, সাধু সম্মেলন ও সাধুভাÐারা। আশ্রমের বিদ্যার্থীদের পরিবেশনায় যোগাসন প্রদর্শন এবং বইয়ের মোড়ক উন্মোচন। ১ম দিনের ধর্মসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন এবং ভারতের বিভিন্ন মঠ মন্দির থেকে আগত সন্ন্যাসীবৃন্দ, ২য় দিন প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার ক্রাইম এন্ড অপারেশন শ্রী শ্যামল কুমার নাথ এবং ৩য় দিন প্রধান অতিথি ছিলেন- চট্টগ্রামে নিযুক্ত ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার শ্রী অনিন্দ্য ব্যানার্জী, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শ্রী দীপক চক্রবর্তী, দেবাশীষ পালিত, শ্রী শৈবাল দাশ সুমন এবং বিভিন্ন মঠ মন্দিরের মহাত্মাবৃন্দ। প্রধান অতিথি আ জ ম নাছির বলেন, বলেন মানবতার কল্যাণের জন্যই মহাত্মাদের জন্ম। তাদের আদর্শকে অনুসরণ করলে মানুষের জীবন সুন্দর হবে সমাজ ও রাষ্ট্র দুর্নীতিমুক্ত হবে। সেরকম মানবতাবাদী একজন মহাত্মা স্বামী সুসিদ্ধানন্দ সরস্বতী মহারাজ। ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার তার বক্তব্যে যোগাশ্রমের মানবতার কল্যাণে কাজের প্রশংসা করেন এবং এ ধরনের কাজের মাধ্যমে রাষ্ট্রের মানুষ উপকৃত হবে। যোগাশ্রমের ধারাবাহিক প্রকাশনার অংশ হিসেবে এ বছর তিনটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। সমগ্র অনুষ্ঠানের মধ্যমণি ছিলেন স্বামী সুসিদ্ধানন্দ সরস্বতী মহারাজ। বিজ্ঞপ্তি