চট্টগ্রামে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বক্তারা

স্বাধীনতা সংগ্রামসহ সবক্ষেত্রে ইত্তেফাক দ্ব্যর্থহীন প্রেরণা

39

দৈনিক ইত্তেফাকের ৬৭ বছরে পদার্পণ এবং প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী-২০১৯ উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামসহ সুখে-দুঃখে ইত্তেফাক দ্ব্যর্থহীন প্রেরণা। সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে দাঁড়িয়ে শোষণ-নিপীড়নের বিরুদ্ধে ইত্তেফাক সব সময় কথা বলেছে। ইত্তেফাক তাই সকল সময়েই বাঙালির চিরচেনা আপন কণ্ঠস্বর হয়ে উঠতে পেরেছে। এই সংবাদপত্র জাতিকে উজ্জ্বল বাতিঘরের মতো পথ দেখিয়ে আরো বহুদূর নিয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন বক্তারা।
অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ব্যবসায়িক অঙ্গনের নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক-সাংবাদিক সমাজ ও বিপুল সংখ্যক সর্বস্তরের সুধীজন ইত্তেফাকের সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। কেক কেটে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করা হয়।
অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, দৈনিক ইত্তেফাকের সাথে বাঙালি সমাজকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেয়ার কিছু নেই। ঐতিহ্যে আধুনিকতায় উজ্জ্বল দৈনিক ইত্তেফাক অতুলনীয়। এই সংবাদপত্র বাঙালিকে স্বাধীনতার সংগ্রাম শিখিয়েছে, স্বাধীনতা যুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করেছে। আবার দেশ গঠনে জাতিকে উন্নয়নের শীর্ষে নেয়ার বর্তমান সংগ্রামে সাহস যোগাচ্ছে।
চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, ইত্তেফাক চিরকাল বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা ও ন্যায়ের পক্ষে গণআকাক্সক্ষার কথা কুণ্ঠাহীনভাবে তুলে ধরেছে। এই সংবাদপত্র কখনো কোন কিছুতে পক্ষপাতিত্ব করেনি। বরং সাংবাদিকতার নৈতিকতায় জাতি-মানুষের স্বার্থকে সবসময় তুলে ধরেছে।
অনুষ্ঠানে আগত অতিথিবৃন্দকে স্বাগত জানিয়ে বক্তব্য রাখেন ইত্তেফাক চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান সালাহউদ্দিন মো. রেজা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে ইত্তেফাককে শুভেচ্ছা জানান চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মো. মাহবুবুল আলম, বিজিএমইএ’র পক্ষ থেকে ক্লিফটন গ্রূপের প্রধান নির্বাহী এমডিএম মহিউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, প্রাক্তন পরিচালক সাইফুল্লাহ মনসুর, সিডিএ চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ, এফবিসিসিআই’র প্রাক্তন সহ-সভাপতি ও চট্টগ্রাম উইমেন চেম্বারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি
মনোয়ারা হাকিম আলী, মুক্তিযোদ্ধা ফারুক-ই-আজম বীরপ্রতীক, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক মহসীন কাজী, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সভাপতি আলী আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. নাজিমুদ্দীন শ্যামল, সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, বাসস চট্টগ্রামের ব্যুরো প্রধান কলিম সরওয়ার, বিএফইউজে’র সাবেক সহ-সভাপতি মো. শহীদ উল আলম, আসিফ সিরাজ, সাংবাদিক এসএম আতিকুর রহমান, জাহিদুল করিম কচি, জসিম চৌধুরী সবুজ, নুরুল আমিন, মোস্তাক আহমেদ, তমাল চৌধুরী, পংকজ দস্তিদার, প্রদীপ দেওয়ানজী, সাংবাদিক শাহীন চৌধুরী, রাশেদ রউফ, স.ম ইব্রাহিম, শামসুল হক, সবুর শুভ, চট্টগ্রাম টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি নাছির উদ্দীন তোতা, যুগান্তর চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান শহীদুল্লাহ শাহরিয়ার, কালের কণ্ঠ চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান মোস্তফা নঈম, বিডিনিউজ চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান মিন্টু চৌধুরী, দেশ রূপান্তরের ব্যুরো প্রধান ফারুক ইকবাল, মঈনুদ্দিন কাদেরী শওকত, বৈশাখী টেলিভিশন চট্টগ্রামের ব্যুরো প্রধান মহসীন চৌধুরী, সাংবাদিক ডেইজী মউদুদ, দেবদুলাল ভৌমিক, ম. শামসুল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম, রাশেদ মাহমুদ, সুবল বড়–য়া, রতন কান্তি দেবাশীষ, কুতুব উদ্দিন, শহীদুল ইসলাস, হারুনুর রশিদ, শোয়েব খান, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট চট্টগ্রামের সভাপতি মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু, দেবাশীষ বড়–য়া দেবু, এজেডএম হায়দার, নিজাম হায়দার সিদ্দিকী, পূরবী দাশ, নুরুদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, ইয়াং ওয়ান কর্পোরেশনের আইন উপদেষ্টা অ্যাড. আফতাব উদ্দিন, মাহফুজুল হক চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষা বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ড. উদিতি দত্ত, ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, মো. গিয়াস উদ্দিন, আঞ্জুমান আরা, খাতুনগঞ্জ ট্রেড এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ছগীর আহমেদ, মো. জামাল হোসেন, চট্টগ্রাম মহিলা চেম্বারের সদস্য জাহিদা আক্তার মিতা, চট্টগ্রাম চেম্বারের শায়লা আবেদীন রিমা, সাংস্কৃতিক সংগঠক ও কবি সেলিম আক্তার পিয়াল, সিজেকেএস’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আমিনুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য মো. নাসির মিঞা, বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা কামাল, ফুলকলি ফুড প্রোডাক্টস লিমিটেডের জিএম এমএ সবুর, বাংলাদেশ লবণ মিল ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি মো. নুরুল কবির, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ২১ ব্যাচের পক্ষ থেকে প্রিন্সিপাল সরোয়ার আলম, চাকসু’র সহ ক্রীড়া সম্পাদক মহিউদ্দিন বাদল, পুলিশ ইন্সপেক্টর এনামুল হক, অধ্যাপক ড. এবিএম আজাদ, সংবাদপত্র কম্পিউটার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কায়েস চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ সজল হোড়, চট্টগ্রাম এক্স কাউন্সিলর ফোরামের জামাল হোসেন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক সদস্য জাহেদুর রহমান সোহেল, এক্স-স্টুডেন্ট ফোরাম চট্টগ্রাম দৌলতপুর হক বাহাদুর হাই স্কুল-ফেনী এর সভাপতি নুরুল আবছার ভ‚ঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক একেএম জহিরুল হক কামরুল, হকার্স সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ ইউছুপ, সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম লিটন, এজেন্টদের মধ্যে হারুনুর রশিদ, আইয়ুব আলী, আবদুর রাহিম প্রমুখ। এছাড়াও স্ট্যান্ডার্ড এশিয়াটিক অয়েল কোম্পানী লিমিটেড, ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি, সাউদার্ন ইউনিভার্সিটি, ফোর এইচ গ্রূপ, পার্ক ভিউ হসপিটাল সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।