সীতাকুন্ডে পুলিশের সহায়তায় মা’র কোল পেল শিশু

সীতাকুন্ড প্রতিনিধি

33

সীতাকুন্ড থানার ওসির সহায়তায় ৪ মাসের পুত্র সন্তান ফিরে পেল মায়ের কোল। গতকাল সন্ধ্যায় উপজেলার বাড়বকুন্ড আনোয়ারা জুট মিলের পশ্চিম পাশে করিমদের বাড়ি থেকে এ শিশুকে উদ্ধার করা হয় বলে সীতাকুন্ড থানার উপ-পরিদর্শক মো.সোহেল রানা নিশ্চিত করেন।জানা যায়,স›দ্বীপ থানার কালাপানিয়া ইউনিয়নের অহিদুর রহমানের মেয়ে মাসুমা বেগম সীতাকুন্ড উপজেলার বাড়বকুন্ড আনোয়ারা জুট মিলের পশ্চিম পাশের করিমদের বাড়ির আব্দুল মোতালেবের পুত্র প্রবাসী মো.ফরিদের স্ত্রী। বিয়ের পর থেকে প্রবাসী স্বামী স্ত্রীকে যৌতুকের জন্য গাল-মন্দ ও মারধর করে আসছিল। এভাবে এক বছর ৪ মাস অতিবাহিত হওয়ার পর যৌতুকলোভী স্বামী যৌতুকের টাকা না পেয়ে সহজ-সরল মাসুমাকে ডিভোর্স দিয়ে বিদেশে পাড়ি জমান। এরপর গত রবিবার কালাপানিয়া এলাকায় মাসুদার ঘরে গিয়ে তাঁর কোলের শিশুকে ফরিদের লোকজন গিয়ে বাড়বকুন্ড এলাকায় ছিনিয়ে নিয়ে আসে। পরে এই ঘটনা মাসুদার বাবা কালাপানিয়ার স্থানীয় চেয়ারম্যান বায়রন মিয়াকে অবগত করেন।তিনি সীতাকুন্ডের আওয়ামী লীগ নেতা নাজিম উদ্দিন কনককে বিষয়টি দেখতে বলেন। কনক গতকাল সকালে বিষয়টি সীতাকুন্ড থানাকে অবহিত করে এবং একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের পর সীতাকুন্ড থানার ওসি ইফতেখার হাসানের সহায়তায় দিনভর অভিযান চালিয়ে উপজেলার বাড়বকুন্ড আনোয়ার জুট মিল এলাকা থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করে মায়ের কোলে হস্তান্তর করা হয়।শিশুর মা মাসুদা বলেন,সংসার করাকালীন আমার স্বামী আমাকে যৌতুকের জন্য অনেক নির্যাতন করতেন। আমি সব সহ্য করতাম। আমাকে ডিভোর্স দিয়েছে, মস্য ছিল না। কিন্তু আমার কোল থেকে আমার ৪ মাসের শিশুপু কে ছিনিয়ে নিয়েছে। আমি যাদের জন্য আমার শিশুকে ফিরে ফেলাম সবার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করবো। আমি এক হতভাগা মা।’
এ বিষয়ে সীতাকুন্ড থানার ওসি ইফতেখার হাসান বলেন,‘গতকাল সকালে ৪মাস বয়সী শিশুটির মা ও আত্মীয়-স্বজন থানায় আসে। এরপর আমি অসহায় মায়ের কান্না দেখে আমি একটি অভিযোগ দায়ের করতে বলি। অভিযোগের পর বিবাদী আব্দুল মোতালেবের বাড়িতে অভিযান চালায়। অভিযান চালালে প্রথমে তাঁরা শিশুটিকে লুকিয়ে ফেলে। পরে বিবাদীকে আটকের পর শিশুকে আমাদের কাছে দেয়। আমরা সন্ধ্যায় শিশুটিকে তাঁর মায়ের কোলে হস্তান্তর করি।’