সিরীয় সরকারকে চড়া মূল্য দিতে হবে : এরদোয়ানের হুঁশিয়ারি

7

মাত্র দুই সপ্তাহের ব্যবধানে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত ইদলিবে তুর্কি সেনাদের ওপর সিরীয় সেনাবাহিনীর হামলার পর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান। মঙ্গলবার তিনি বলেছেন, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে তুর্কি সেনাদের ওপর হামলার জন্য চড়া মূল্য দিতে হবে সিরিয়ার সরকারকে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এখবর জানিয়েছে।
সোমবার তুরস্ক সমর্থিত বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রিত এলাকা ইদলিব প্রদেশে সিরিয়ার সেনাবাহিনীর অভিযানে পাঁচ তুর্কি সেনা নিহত হয়। এই হামলার জবাবে সিরিয়ার শতাধিক স্থাপনায় পাল্টা হামলা চালায় তুরস্ক। এরদোয়ান বলছেন, পাল্টা হামলা চলবে।
তবে সিরীয় সেনারা দেশটির উত্তর-দক্ষিণাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়কের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণের কাছাকাছি রয়েছে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস মঙ্গলবার সকালে জানিয়েছে, সিরীয় বাহিনী বিদ্রোহী ও জিহাদিদের এম৫ মহাসড়কের শেষ অংশ থেকে সরিয়ে দিয়েছে। অবশ্য বিষয়টি সিরীয় সরকারের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করা হয়নি। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মহাসড়কে গোলাগুলির খবর পাওয়া হয়েছে।
২০১২ সাল থেকে এম৫ মহাসড়ক পুরোপুরি সরকারের নিয়ন্ত্রণে নেই। এই মহাসড়কটি রাজধানী দামেস্কর সঙ্গে আলেপ্পোকে সংযুক্ত করেছে। পাল্টা হামলা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়ে মঙ্গলবার আঙ্কারায় দেওয়া এক ভাষণে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান বলেছেন, সিরীয় পক্ষকে আমরা সর্বোচ্চ পর্যায়ের প্রয়োজনীয় জবাব দিয়েছি। বিশেষ করে ইদলিবে তাদের যা পাওয়া উচিত আমরা সেটিই দিয়েছি। কিন্তু এটিই যথেষ্ট নয়। এটি চলবে। এরদোয়ান আরও বলেন, তারা যত আমাদের সেনাদের হামলা করবে তত চড়া মূল্য তাদের দিতে হবে। আগামীকাল আমরা জনগণকে সবকিছু জানাব। তুরস্কের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, গত সপ্তাহে পাঠানো সাঁজোয়া যানের পাশাপাশি ইদলিবে তুর্কি অবস্থানে আরও সামরিক গাড়িবহর পাঠানো হয়েছে। সিরিয়ার বাহিনী অভিযোগ করেছে আগ্রাসনের উত্তেজনামূলক কর্মকাÐের মাধ্যমে তুরস্ক সন্ত্রাসীদের সহযোগিতায় জনবহুল এলাকায় হামলা চালাচ্ছে। তারা এসব হামলার জবাব দেবে।
সিরীয় প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের সমর্থক রাশিয়া আহ্বান জানিয়েছে উত্তেজনা নিরসন চুক্তি মেনে চলার জন্য। একই সঙ্গে তারা হুঁশিয়ারি জানিয়ে বলেছে, সিরিয়ার সেনাবাহিনী ও রুশ সামরিক স্থাপনায় যে কোনও সন্ত্রাসী হামলার গ্রহণযোগ্য নয়। জাতিসংঘের মতে, গত ডিসেম্বরে ইদলিবে সিরিয়ার সেনাবাহিনী অভিযান শুরুর পর অন্তত ৩৭৩ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন এবং ৬ লাখ ৮৯ হাজার মানুষ নিজেদের ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়েছেন।