সিরিয়ায় বিমান হামলায় নিহত অন্তত ২২ জন

2

সিরীয় য্দ্ধুাহতদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন হোয়াইট হেলমেটস দাবি করেছে, ইদলিব প্রদেশে আসাদ বাহিনীর পৃথক দুই বিমান হামলায় অন্তত ২২ জন বেসামরিক প্রাণ হারিয়েছে। এদের মধ্যে নারী ও শিশুও রয়েছে। চলমান সিরীয় যুদ্ধের এই পর্যায়ে বিদ্রোহীরা একমাত্র ইদলিব প্রদেশের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে সমর্থ হয়েছে।
৩০ লাখের বেশি নাগরিক সেখানে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। গত বছর আসাদ সরকারকে আক্রমণ থেকে বিরত রাখতে ইদলিবকে একটি বেসামরিক অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা দেয় তুরস্ক-রাশিয়া। সেই ঘোষণা অনুযায়ী সেখানে হামলা নিষিদ্ধ হলেও সিরীয় শাসকগোষ্ঠী তা মানছে না। রাশিয়া ও তুরস্কের বাধা উপেক্ষা করে আসাদের অনুগত বাহিনী সেখানে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। হোয়াইট হেলমেটস-এর একজন মুখপাত্রের দাবি অনুযায়ী, আসাদ বাহিনীর ছোড়া একটি ক্ষেপণাস্ত্র তুরস্ক সীমান্তের কাছে উত্তর ইদলিবের কাহ শরণার্থী শিবিরে আঘাত হানলে ১৬ জন নিহত হয়। আহত হয় অনেকে। নিহতদের মধ্যে ১০ জন শিশু ও ৩ জন নারী রয়েছে বলে জানিয়েছে হোয়াইট হেলমেটস।
যুক্তরাজ্যভিত্তিক পর্যবেক্ষক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, আসাদ বাহিনীর ছোড়া কামানের গোলা কাহের একটি ‘মা ও শিশু’ হাসপাতালেও আঘাত হেনেছে।
এদিকে হোয়াইট হেলমেটস-এর একজন স্বেচ্ছাসেবী জানিয়েছেন, উত্তরাঞ্চলীয় আরেক শহর মারেট আল নোমানে আসাদ বাহিনীর অপর এক বিমান হামলায় ৪ শিশুসহ ৬ জন নিহত হয়েছে।