সিরিয়ায় অতিরিক্ত ৬০০ মার্কিন সেনা মোতায়েন

22

ইরাকের সীমান্তবর্তী সিরিয়ার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে শত শত মার্কিন সেনা মোতায়েন করা হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
সিরিয়া সরকারের অনুমতি ছাড়াই ওই অঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকা কার্যত দখল করে রেখেছে আমেরিকা। তুর্কি-ভাষার দৈনিক ইয়েনি অ্যাকিত শুক্রবার খবর দিয়েছে, সিরিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় আল-তানাফ এলাকায় প্রতিষ্ঠিত সেনা ঘাঁটিতে সম্প্রতি ৬০০ মার্কিন সেনা প্রবেশ করেছে।
দুই বছর আগে দামেস্কের অনুমতি ছাড়া ওই সেনা ঘাঁটি নির্মাণ করে যুক্তরাষ্ট্র। এ ছাড়া, বিদেশি মদদপুষ্ট ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিদের প্রতি সহানুভূতিশীল আরবি ভাষার নিউজ ওয়েবসাইট পালমিরা মনিটরও জানিয়েছে, গত কয়েকদিনে মার্কিন সেনাদের বেশ কিছু ইউনিটকে সাঁজোয়া যানসহ ওই সেনা ঘাঁটিতে প্রবেশ করতে দেখা গেছে। এর আগে রাশিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের কর্মকর্তা আলেক্সান্ডার ভেনেদিক্তোভের বরাত দিয়ে রুশ বার্তা সংস্থা রিয়া নোভোস্তি জানিয়েছিল, সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে মার্কিন-সমর্থিত কুর্দি বিদ্রোহী অধ্যুষিত এলাকায় প্রায় ২০টি সামরিক ঘাঁটি স্থাপন করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ভেনেদিক্তোভ বলেন, ‘সিরিয়ায় বিদেশিদের হস্তক্ষেপের কারণে দেশটিতে শান্তি ও স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। কুর্দি বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রিত এলাকায় মার্কিন সামরিক বাহিনী ২০টি ঘাঁটি নির্মাণ করেছে।’ ওয়াশিংটন কুর্দি বিদ্রোহীদের কাছে সর্বাধুনিক সমরাস্ত্র সরবরাহ করছে বলেও ওই রুশ নিরাপত্তা কর্মকর্তা জানান। তিনি আরো বলেন, দামেস্ক সরকারের অনুমতি ছাড়া আল-তানাফ সেনাঘাঁটির আশপাশের ৫৫ কিলোমিটার এলাকা দখল করে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। এ ছাড়া, জর্ডানে নিযুক্তি রুশ রাষ্ট্রদূত বরিস বোলোতিন জানিয়েছে, আল-তানাফ এলাকায় মার্কিন সেনারা উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসীদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে।