সালমান-শাবনূর জুটি এখনও সেরা

11

‘জ্বালাইয়া প্রেমের বাত্তি কোথায় তুমি থাকো রে’- কালজয়ী একটি গান। নব্বই দশকের মাঝামাঝিতে এই গান ছড়িয়ে পড়েছিলো যেন বিরহী অন্তরের বিপ্লব ছুঁয়ে। প্রেমের মানুষ হারিয়ে তাকে খোঁজে ফেরার আকুল আহব্বানের গানটি তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছিলো সারা দেশজুড়ে। এই গান দিয়ে নব্বই দশকের তরুণদের মনে নতুন করে দাগ কেটেছিলেন চিরসবুজ গায়ক কুমার বিশ্বজিৎ। তার কণ্ঠের গানটি নিয়ে রুপালি পর্দায় হাজির হয়েছিলেন অমর নায়ক সালমান শাহ। হ্যা দর্শক, বলছি প্রয়াত চিত্র পরিচালক জহিরুল হকের ‘তুমি আমার’ সিনেমার কথাই। সে ছবিতে মঞ্চে ব্যান্ড নিয়ে গায়ক সালমানের উচ্ছ্বাসভরা পারফর্ম আজও মুগ্ধতা দিয়ে যায়। অবশ্য এই গানটি ছবিতে স্যাড ভার্সনেও ব্যবহৃত হয়েছে। প্রেমের বিরহে জ্বলতে থাকা শাবনূরের জন্য গানটি গেয়েছিলেন কিংবদন্তী কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা। সেই গান প্রকাশের ও গানের সিনেমা ‘তুমি আমার’ মুক্তির রজত জয়ন্তী হয়ে গেল বুধবার। ১৯৯৪ সালের ২২ মে ঈদের সিনেমা হিসেবে মুক্তি পেয়েছিল এই ছবিটি। ঈদের তুমুল সুপারহিট ছবি হিসেবে এটি নাম লেখাতে সক্ষম হয়। তারুণ্যের কাছে তখন খুবই প্রিয় সালমান-শাবনূর জুটি। সেই জুটিকে দেখতে ঈদের ছুটিতে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়লেন সিনেমা হলে। এই ছবির মধ্য দিয়েই শুরু হয়েছিলো সালমান-শাবনূর জুটির স্বপ্নের যাত্রা। সেই যাত্রা অমরত্ব নিয়েছে এদেশের চলচ্চিত্রের ইতিহাসে। আজও এই জুটি খুবই জনপ্রিয়। এরপর সালমান শাহের সাথে জুটি বেঁধে ১৪টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন শাবনূর। তারমধ্যে রয়েছে ‘সুজন সখী’, ‘স্বপ্নের ঠিকানা’, ‘স্বপ্নের পৃথিবী’, ‘তোমাকে চাই’, ‘আনন্দ অশ্রু’, ‘শুধু তুমি’ ইত্যাদি। ‘জ্বালাইয়া প্রেমের বাত্তি কোথায় তুমি থাকো রে’ গানটির মতো এই ছবিতে আরও একটি গান জনপ্রিয়তা পেয়েছিলো সর্বত্র। ‘দেখা না হলে একদিন’ শিরোনামের গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছিলেন আগুন ও কনক চাঁপা। দেখতে দেখতে ছবির মুক্তির ২৫ বছর পার হয়ে গেলো। সেই ছবির সঙ্গে জড়িত অনেকেই আজ আর পৃথিবীতে বেঁচে নেই। তাদের অন্যতম ছবির নায়ক সালমান শাহ, ছবির পরিচালক জহিরুল হক। জানা গেল না তাদের অনুভূতিটুকু। শাবনূর রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ায়। প্রিয় নায়কের সঙ্গে জুটি বাঁধার রজত জয়ন্তীতে তার অনুভূতিও পাওয়া গেল না। তবে স্মৃতির জানালা খোলে দিয়েছেন নন্দিত কণ্ঠশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ। তিনি বলেন, ‘কী অদ্ভূত, ২৫টা বছর পেরিয়ে গেল সালমান শাহ’র জন্য ‘জ্বালাইয়া প্রেমের বাত্তি কোথায় তুমি থাকো রে’ গানটি গেয়েছিলাম। তার মানে জীবন থেকেও ২৫টি বছর চলে গেল! আহা! কালজয়ী সব গান গাওয়ার সেই দিনগুলো সোনায় মুড়ানো থাকবেন চিরদিন। সালমান-শাবনূরসহ এই ছবির সঙ্গে জড়িত যে যেখানে আছেন সবাই যেন ভালো থাকেন, শান্তিতে থাকেন।’