সন্দ্বীপে সাবমেরিন ক্যাবলে যাবে বিদ্যুৎ ও ইন্টারনেট

21

সমুদ্রের তলদেশ দিয়ে সাবমেরিন ক্যাবল লাইন স্থাপনের মাধ্যমে সন্দ্বীপে বিদ্যুৎ ও ইন্টারনেট সেবা পৌঁছে দিতে চায় সরকার। এ লক্ষ্যে বিদুৎ উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে ১৪৪ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পের ৯০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে।
প্রাথমিক পর্যায়ে ১০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাবেন চট্টগ্রামের বিচ্ছিন্ন দ্বীপ স›দ্বীপের বাসিন্দারা। পাশাপাশি ব্রডব্যান্ড লাইনের মাধ্যমে মিলবে ইন্টারনেট সংযোগ। চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জেড টি টি প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।
বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, সমুদ্রের তলদেশে সন্দ্বীপ চ্যানেলে ভ‚-পৃষ্ঠ হতে ১০ থেকে ২০ ফুট গভীরতায় দুটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ক্যাবল নেটওয়ার্ক সমুদ্র তীরবর্তী চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড অংশে ও সন্দ্বীপ চ্যানেলে যুক্ত করা হয়েছে। উপক‚ল থেকে ১৬ কিলোমিটারের দুটি ক্যাবল স্থাপনের মাধ্যমে এ সংযোগ দেওয়া হয়।
স›দ্বীপে ১৬ ও সীতাকন্ডে ১০ কিলোমিটার হেডলাইন স্থাপন করা হচ্ছে। ৩৩ হাজার ভোল্টের ২টি ক্যাবল বসানো হয়েছে। প্রতিটি ক্যাবলে ৩টি কোর ও একটি অপটিক্যাল ফাইবার আছে। একটি ক্যাবলের মাধ্যমে ১০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সঞ্চালন করা হবে। অন্য ক্যাবলটি বিকল্প হিসেবে রাখা হয়েছে। ভবিষ্যতে বিদ্যুৎ চাহিদা বৃদ্ধি পেলে এই ক্যাবলের মাধ্যমেও বিদ্যুৎ সরবরাহ করা যাবে।
সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, এই দুটি ক্যাবলের মাধ্যমে ৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সঞ্চালন করা যাবে। এগুলোর স্থায়িত্বকাল ৫০ বছর। প্রকল্পের আওতায় একটি বিদ্যুতের সাবস্টেশন ও ২টি ট্রান্সফরমার বসানো হচ্ছে। পাশাপাশি ১ হাজার ৮০০টি পোল বসানো হচ্ছে। ইতোমধ্যে ১ হাজার ৫০০টি পোল বসানো হয়েছে। খবর বাংলানিউজের
স›দ্বীপে বর্তমানে ২ হাজার গ্রাহককে জেনারেটরের মাধ্যমে প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত গড়ে ১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড।
বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন বলেন, প্রকল্পের আওতায় স›দ্বীপের প্রায় ১০ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎ পাবেন। প্রথমে দৈনিক ১০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হলেও পরবর্তীতে শতভাগ মানুষকে বিদ্যুৎ দেওয়া যাবে। বিদ্যমান লাইনের আওতায় সর্বোচ্চ ৩০ মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ করা যাবে। পাশাপাশি অপর একটি ওভারহেড লাইন বসানো হলে সাবমেরিন ক্যাবল দিয়ে স›দ্বীপে বিদ্যুৎ সরবরাহ ৬০ মেগাওয়াট পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।
তিনি বলেন, স›দ্বীপ চ্যানেলে স্রোত বেশি থাকায় ক্যাবল স্থাপন কার্যক্রম কিছুটা বিলম্বিত হয়। ২০১৭ সালের ১০ ডিসেম্বর থেকে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করলেও মূলত ২১ ডিসেম্বর থেকে সমুদ্রে ক্যাবল স্থাপনের কাজ শুরু করা হয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রকল্পের বাকি কাজ শেষ করা হবে।
স›দ্বীপের সংসদ সদস্য মাহফুজুর রহমান মিতা জানান, সাবমেরিন ক্যাবল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা চালু হলে গভীর সমুন্দ্রবন্দর স্থাপন ও জেগে ওঠা চরগুলোতে শিল্পাঞ্চল স্থাপন করা যাবে। বিদ্যুৎ পেলে বিভিন্ন কারখানা ও প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে। যেখানে মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। এ ছাড়া কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাতকরণের কাজও সহজ হবে। কাজ প্রায় শেষ। আশা করছি নভেম্বর মাসের মধ্যেই স›দ্বীপবাসী প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রæত বিদ্যুৎ পাবে।