সংবিধান ও আজকের বাংলাদেশ

হরিসাধন দেবব্রহ্মণ

8

দীর্ঘ লড়াই, সংগ্রাম ও সর্বোপরি মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে। গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা ও জাতীয়তাবাদ এই চার মূলনীতির মাধ্যমে বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন করেন ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে সংবিধান প্রণয়ন কমিটি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট দুঃখজনক ঘটনার পর রাষ্ট্রীয় পট পরিবর্তনের পর প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান রাষ্ট্র ও সংবিধানকে ইসলামীকরণের নামে নিয়মতান্ত্রিক অসাম্প্রদায়িক সংবিধান পরিবর্তন করে সাম্প্রদায়িক সংবিধান প্রণয়ন করেন। ফলে ইসলামের নামে মদের আমদানি ও যৌনকর্মীদের তৎপরতা বৃদ্ধি পায়। দেশে স্বৈরতান্ত্রিক ও সাম্প্রদায়িক শাসন প্রবর্তন হয়। পরবর্তীতে স্বৈরশাসক এরশাদ ইসলাম ধর্মকে ব্যবহার করে, ইসলামকে রাষ্ট্র ধর্ম করে আবারো সংবিধানের মূল কাঠামো পরিবর্তন করেন। ফলশ্রæতিতে দেশে এখনও সাম্প্রদায়িক ও স্বৈরতান্ত্রিক আবহ তৈরি সহজতর হয়েছে এবং তা এখনো বিদ্যমান। এই অবস্থার পরিবর্তনের লক্ষ্যে এবং সংবিধানসম্মতভাবে দেশ পরিচালনার জন্যে বাংলাদেশের সংবিধান ও আজকের বাংলাদেশ শীর্ষক সেমিনারে সংবিধানের কিছু মৌলিক আর্টিকেল তুলে ধরেছি, যা জনগণের শাসন কায়েমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।
সংবিধানের আর্টিকেল, ৫৯ ও ৬০ নিম্নরূপঃ সরকার তার পছন্দ অনুযায়ী উপজেলা পদ্ধতি প্রবর্তন করেন।
কিন্তু সংবিধানে স্থানীয় শাসন সংক্রান্ত আর্টিকেল নিম্নরূপ :
আর্টিকেল ৫৯ : স্থানীয় শাসন
(১) আইনানুযায়ী নির্বাচিত ব্যক্তিদের সমন্বয়ে গঠিত প্রতিষ্ঠানসমূহের উপর প্রজাতন্ত্রের প্রত্যেক প্রশাসনিক একাংশের স্থানীয় শাসনের ভার প্রদান করা হইবে।
(২) এই সংবিধান ও অন্য কোন আইন সাপেক্ষে সংসদ আইনের দ্বারা যে রূপ নির্দিষ্ট করিবেন এই অনুচ্ছেদের (১) দফায় উল্লিখিত প্রত্যেক প্রতিষ্ঠান যথোপযুক্ত প্রশাসনিক একাংশের মধ্যে সেইরূপ দায়িত্ব পালন করিবেন এবং অনুরূপ আইনে নিম্নলিখিত বিষয়সংক্রান্ত দায়িত্ব অন্তর্ভুক্ত হইতে পারিবে :
ক) প্রশাসন ও সরকারী কর্মচারীদের কার্য।
খ) জনশৃঙ্খলা রক্ষা ।
গ) জনসাধারণের কার্য ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন সম্পর্কিত পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন।
আর্টিকেল ৬০ : স্থানীয় শাসন সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানের ক্ষমতা
এই সংবিধানে ৫৯ অনুচ্ছেদের বিধানাবলীকে পূর্ণ কার্যকরতা দানের উদ্দেশ্যে সংসদ আইনের দ্বারা উক্ত অনুচ্ছেদের উল্লেখিত স্থানীয় শাসন সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠান সমূহকে স্থানীয় প্রয়োজনে কর আরোপ করিবার ক্ষমতাসহ বাজেট প্রস্তুতকরণ ও নিজস্ব তহবিল রক্ষণাবেক্ষণের ক্ষমতা প্রদান করিবেন।
সংবিধানে আর্টিকেল ২৭ নিম্নরূপ :
২৭। সকল নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমান এবং আইন সমান আশ্রয় লাভের অধিকারী।
সংবিধানের আর্টিকেল ৩১ ও ৩৯ নিম্নরূপ :
৩১। আইনের আশ্রয়লাভ এবং আইনানুযায়ী ও কেবল আইনানুযায়ী ব্যবহার লাভ যেকোন স্থানে অবস্থানরত প্রত্যেক নাগরিকের এবং সাময়িকভাবে বাংলাদেশে অবস্থানরত অপরাপর ব্যক্তির অবিচ্ছেদ্য অধিকার এবং বিশেষতঃ আইনানুযায়ী ব্যতীত এমন কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাইবে না, যাহাতে কোন ব্যক্তির জীবন, স্বাধীনতা, দেহ, সুনাম বা সম্পত্তি হানি ঘটে।
৩৯। (১) চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা প্রদান করা হইল
(২) রাষ্ট্রের নিরাপত্তা, বিদেশি রাষ্ট্রসমূহের সহিত বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, জনশৃঙ্খলা, শালীনতা বা নৈতিকতার স্বার্থে কিংবা আদালত, অবমাননা, মানহানি বা অপরাধ সংঘটনে প্ররোচনা সম্পর্কে আইনের দ্বারা আরোপিত যুক্তিসংগত বাধা নিষেধ সাপেক্ষে।
(ক) প্রত্যেক নাগরিকের বাক ও ভাব প্রকাশের স্বাধীনতার অধিকারের এবং
(খ) সংবাদক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দান করা হইল। অথচ তথ্য প্রযুক্তি নিরাপত্তা আইন করে পরোক্ষভাবে সাংবাদিক ও সংবাদপত্রের উপর নিয়ন্ত্রণ কায়েম করেন। অথচ দেশে অর্পিত সম্পত্তি (শত্রু সম্পত্তি) আইন বহাল আছে, এখনো পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন হয় নাই। ফলে দেশে সংবিধানের পবিত্রতা নিয়ে আজ দেশবাসী প্রশ্ন করতে পারে। তাই জনগণের প্রশ্ন এখন করা যায়। কারণ জনগণই ক্ষমতার উৎস। তাই সবাই মুখ খুলুন, কলম ধরুন।
উপর্যুক্ত বৈপরিত্য সত্তে¡ও বাংলাদেশে কিছু সুখবর অব্যাহত আছে
বাংলাদেশের সাংবিধানিক শাসনতন্ত্র চলমান * দেশে দারিদ্রের হার কমেছে * শিশু মৃত্যুহার ও মাতৃ মৃত্যুহার কমেছে * বয়স্ক ভাতা ও বিধবা ভাতা চালু করেছে * মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য মুক্তিযোদ্ধা ভাতা চালু আছে * প্রচলিত চুরি, ডাকাতি কমেছে * পদ্মাসেতু নির্মাণ হচ্ছে * মেট্রোরেল চালু হচ্ছে, রকেট ট্রেন চালু হবে এবং সার্কুলার ট্রেন চালু হবে * বাংলাদেশের প্রতিটি হাইওয়ে চারলেনে উন্নীত হয়েছে * বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপিত হয়েছে, যা তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রে বিশাল অবদান রাখছে।
চলমান উন্নয়ন থাকা সত্তে¡ও দেশের জনগণের কাছে কিছু দুঃসংবাদ আছে :
* অসা¤প্রদায়িক ও মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী দল সাম্প্রদায়িক সংবিধান দিয়ে * দশ পরিচালনা করছে * ঋণখেলাপী ও শেয়ার বাজার কেলেঙ্কারীর হোতা সালমান এফ রহমানকে বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা নিয়োগ করেছে * বাংলাদেশ থেকে ৪৬ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে।
* ২৫ হাজার কোটি টাকা ঋণ খেলাপী হিসেবে আছে না * বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ৮০ হাজার ডলার হ্যাকিং হয়েছে * দেশে আওয়ামী শাসন কায়েম হয়েছে * দেশ এখন চলেছে আওয়ামী মডেলে * নারী ও শিশু নির্যাতন বেড়েছে * বাংলাদেশে ’৭২ সালের সংবিধান পুনঃপ্রবর্তন দরকার * দেশে সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হবে * আইনের শাসন কায়েম করতে হবে।

লেখক : আইনজীবী ও প্রাবন্ধিক