শেষ পাঁচ ওয়ানডেতে লিটন ৩৪, ইমরুল ৩৫৩

16

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলে তামিম ইকবাল ঢোকার পর থেকেই ওপেনিংয়ে একটি পজিশনের জন্য বিসিবিকে আর চিন্তা করতে হয়নি। ২০০৭ সালের ৯ ফেব্রæয়ারি অভিষেক হওয়ার পর থেকে তিনি নিয়মিত ওপেনিং করে আসছেন। ওপেনিংয়ে অপর পজিশনের একজনকে পাকাপোক্ত করতে বিসিবি অনেক চেষ্টা করেছে, কিন্তু হয়নি। ইমরুল কায়েস, এনামুল হক বিজয়, সৌম্য সরকার, শাহরিয়ার নাফিসসহ অনেককে দিয়েই বিসিবি চেষ্টা করিয়েছে। কিন্তু কেউই জায়গা স্থায়ী করতে পরেননি।
আইসিসি বিশ্বকাপের ১২তম আসরের জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ইতোমধ্যে ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে। এই দলে মোট তিনজন ওপেনার রাখা হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই দলে আছেন ওপেনার তামিম ইকবাল। অপর দুই ওপেনার হলেন লিটন দাস ও সৌম্য সরকার। দলে সুযোগ পাননি আরেক ওপেনার ইমরুল কায়েস।
ইমরুল কায়েসকে দলে না নেয়ায় অনেকে সমালোচনা করছেন। পারফরম্যান্সের বিচারে লিটন-সৌম্যর চেয়ে ইমরুল কায়েস এগিয়ে। সর্বশেষ পাঁচ ওয়ানডের স্কোর যদি দেখা হয় সেখানে ইমরুলের ধারে কাছেও নেই এই দুই ওপেনার। সর্বশেষ পাঁচ ওয়ানডেতে ইমরুল কায়েসের স্কোর যথাক্রমে ১৪৪, ৯০, ১১৫, ৪, ০। মোট ৩৫৩ রান।
অন্যদিকে, লিটন দাসের সর্বশেষ পাঁচ ওয়ানডেতে স্কোর যথাক্রমে ৮, ২৩, ১, ১, ১। মোট ৩৪ রান। আর সৌম্য সরকারের স্কোর যথাক্রমে ৬, ৮০, ৩০, ২২, ০। মোট ১৩৮ রান। আর ইমরুল কায়েসের ব্যাটিং গড় ৩২.০২। লিটন দাসের ব্যাটিং গড় ১৯.৫৩। সৌম্য সরকারের ব্যাটিং গড় ৩৪.৪৩। আর ইমরুলের দুইটি বিশ্বকাপ খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। সৌম্য সরকার বিশ্বকাপ খেলেছেন একবার। লিটন দাস এর আগে বিশ্বকাপে খেলেননি।