শত্রূবাহিনীর উপর মুক্তিবাহিনীর সর্বাত্মক আক্রমণ

শাহাবব উদ্দিন মাহমুদ

13

বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। ইতিহাসের প্রচ্ছন্ন ছায়া বাঙালির পক্ষে, স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের পক্ষে। ২৫মার্চ পাক হানাদার বাহিনীর অপারেশন সার্চলাইটের নামে বর্বর গণহত্যার মাধ্যমে বাঙালি নিধন এবং বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতারের পর পুর্বেই বঙ্গবন্ধুর ঘোষণার আলোকে ২৬মার্চ প্রথম প্রহরে শুরু হয় স্বশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রাম। একে এক সাড়ে আটমাস প্রায় অতিবাহিত হল। শত্রূ বাহিনী (পাক হানাদার বাহিনী) ক্রমান্বয়ে ক্ষয়ে আসছে, পরাজয়ের গ্লাণি নিয়ে ধৃত হচ্ছে মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে। দেশের প্রতিটি জেলা-শহরে মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয়ের উল্লাস।
১৯৭১ সালের ১ ডিসেম্বর দিনটি ছিল বুধবার। এইদিন মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে পাকসেনারা পদে পদে মার খায়। সিলেটের কানাইঘাট সন্মুখ লড়াইয়ে মুক্তিবাহিনীর হাতে ৩০ জন পাকসেনা ও রাজাকার নিহত হয়। জুড়ি, বড়লেখা এলাকা থেকে পাকবাহিনী কামান সরিয়ে ফেলে। মুক্তিবাহিনীর হাতে বিপুল ক্ষতির শিকার হয়ে পাকসেনারা কুলাউড়া থেকে পালিয়ে যায়। মুক্তিবাহিনী সিলেটের শমসের নগরে অতর্কিত আক্রমণ চালিয়ে পাকবাহিনীকে নাজেহাল করে তোলে। মুক্তিবাহিনী কুষ্টিয়ার দর্শনা আক্রমণ করে। শেষরাতে সিলেটের শমসের নগর ও কুষ্টিয়ার দর্শনা দখলের লড়াই শেষ পর্যায়ে পৌঁছে। মুক্তিবাহিনীর তীব্র আক্রমণে পাকবাহিনী এলাকা থেকে পালাতে শুরু করে। মুক্তিবাহিনী টেংরাটিলা ও দিয়ারাবাজার মুক্ত ঘোষণা করে। মুক্তিবাহিনীর অপারেশন অব্যাহত থাকায় পাকবাহিনী জেলার গাড়া, আলিরগাঁও, পিরোজপুর থেকে তাদের বাহিনী গুটিয়ে নিতে বাধ্য হয়। কুষ্টিয়ার কাছে মুন্সীগঞ্জ ও আলমডাঙ্গা রেলস্টেশনের মধ্যে মুক্তিসেনারা মাইন বিস্ফোরণের মাধ্যমে পাক সৈন্যবাহী ট্রেন ধ্বংস করে। এতে বহু পাকসেনা হতাহত হয়। সিলেটের ছাতক শহরে মুক্তিবাহিনী ও পাকসেনাদের মধ্যে প্রচÐ যুদ্ধ হয়। যুদ্ধে ৬৫ জন রাজাকার নিহত হয়। মুক্তিযোদ্ধারা সুনামগঞ্জ মৌলভীবাজার মুক্ত করে সামনের দিকে এগিয়ে যায়। কুমিল্লার কসবা রণাঙ্গনে মুক্তিবাহিনীর হাতে ৬০ জনের বেশি পাকসেনা নিহত হয়। রাতে কর্নেল শফিউল্লাহ, ২য় বেঙ্গলের কমান্ডিং অফিসার মেজর মঈন, ১১ বেঙ্গলের কমান্ডিং অফিসার মেজর নাসিমের নেতৃত্বে মুজিব বাহিনী ও বেঙ্গল রেজিমেন্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মেরানী, সিঙ্গারাইল, গৈরালসানী, রাজাপুর ও আজমপুর এলাকা শত্রæমুক্ত করে। যুদ্ধে ২৩ জন পাকসেনা নিহত হয় এবং মুজিব বাহিনীর মুক্তিযোদ্ধা ইয়াসিন খাঁ শহীদ হন। একদল পাকসেনা অতর্কিতভাবে ঘোড়াশাল ন্যাশনাল জুট মিলস ঘিরে ফেলে এবং মিলের বিভিন্ন পদের ১০৪ জন নিরীহ নিরস্ত্র বাঙালি কর্মচারীকে এক লাইনে দাঁড় করিয়ে এলএমজির ব্রাশ ফায়ারে নির্মমভাবে হত্যা করে। সাতক্ষীরা মহকুমার কালিগঞ্জ হানাদার মুক্ত হওয়ায় বিপ্লবী বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ এম কামরুজ্জামান, শ্রী ফণি মজুমদার, তোফায়েল আহমেদ এম এন এ, অর্থসচিব এ জামান, আইজি এম এ খালেক কালিগঞ্জে বেসামরিক প্রশাসন প্রতিষ্ঠাকল্পে সরেজমিনে পরিদর্শন করেন। এদিকে ভারতীয় সেনাবাহিনী পশ্চিম ফ্রন্টে আক্রমণাত্মক ও পূর্ব ফ্রন্টে ঝটিকা আক্রমণ চালিয়ে বাংলাদেশকে হানাদার মুক্ত করার পরিকল্পনা নেয়। অন্যদিকে মুজিবনগর সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, সিলেট, রংপুর, দিনাজপুর, খুলনা, রাজশাহী ও যশোর জেলার ৬২টি থানা এবং নোয়াখালী জেলার সব চর এলাকায় বেসামরিক প্রশাসন প্রতিষ্ঠিত হয়। রাওয়ালপিন্ডিতে জনৈক সরকারি মুখপাত্র জানায়-অধুনালুপ্ত আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের বিচার এখনও শেষ হয়নি। তিনি বলেন, পূর্ব পাকিস্তানের চারটি রণাঙ্গনে যে আক্রমণাত্মক চাপ সৃষ্টি হয়েছিলো তা এখনো অব্যাহত রয়েছে। জাগ্রত বাংলার রিপোর্টে বলা হয়-কালিয়াকৈর থানার এক পরিত্যক্ত বাঙ্কারে ডিফেন্স নেবার সময় ৫ জন খানসেনা ভেতরে প্রবেশ করলে একটি বিষধর সাপের ছোবলে ৫ জনই প্রাণ হারায়। মুক্তিযোদ্ধারা অপারেশন চালিয়ে ঢাকার দুজন মুসলিম লীগ কর্মীকে হত্যা করে। বাকী দুজনকে বুলেট বিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এএফপির এক খবরে প্রকাশ, ঢাকায় পিপলস পার্টির অফিস বোমা বিস্ফোরণের ফলে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই অফিস দুমাস আগে জুলফিকার আলী ভুট্টো উদ্বোধন করেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী পার্লামেন্টের উ”চ কক্ষে বক্তৃতাকালে উপমহাদেশে শান্তি প্রতিষ্ঠার স্বার্থে বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তানি সৈন্য অপসারণের নির্দেশ দেয়ার জন্য প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের প্রতি আহব্বান জানান। তিনি বলেন, বাংলাদেশ থেকে পাকিস্তানি সৈন্য অপসারণই সমস্যার শ্রেষ্ঠ সমাধান। তিনি ভবিষ্যৎ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য বাংলাদেশ ও ভারতের জনসাধারণকে প্রস্তুত থাকার আহব্বান জানান। বাংলাদেশের সকল নিরস্ত্র মানুষকে ধ্বংস করা হবে এটা আমাদের জাতীয় স্বার্থের পরিপন্থি’। ইন্দিরা গান্ধী সরাসরি পাকিস্তানী বাহিনীকে বাংলাদেশ ছাড়ার হুঁশিয়ারি উ”চারণ করলেন। বললেন, বাংলাদেশের মাটিতে পাকিস্তানি সেনার উপস্থি’তি ভারতের নিরাপত্তার জন্য হুমকি। তাঁর সাম্প্রতিক ইউরোপ-আমেরিকা সফরের বিষয়ে রাজ্যসভায় তিন ঘণ্টাব্যাপী বিতর্কের উত্তর দিতে গিয়ে ভারত নেত্রী বললেন, ভারত যথেষ্ট সংযম দেখিয়েছে, আর নয়। আমরা আমাদের প্রতিবেশীদের নিশ্চিহ্ন হতে দিতে পারি না। এইদিন স্বাধীন বাংলা বেতারের আহব্বান ছিল এইরকম-যাদের চক্ষু আছে এবং চক্ষু থেকেও যাঁরা অন্ধ নন, আজ তাঁদেরকে একবার বাংলাদেশের রণাঙ্গনের দিকে দৃষ্টিপাত করতে অনুরোধ করবো। একবার চোখ খুলে দেখুন সংগ্রামী বীর যোদ্ধা বাঙালী যুবকগণ কিভাবে পশ্চিমা হানাদার পশুদের খতম করে ক্রমাগত জয়ের লক্ষ্য পানে এগিয়ে চলেছেন। বাংলাদেশের চ‚ড়ান্ত দুর্দিনে পাকসেনাদের হাত থেকে দেশকে সম্পূর্ণ মুক্ত করবার জন্য মুক্তিবাহিনীর বীর সৈনিকগণ আত্মত্যাগ, সাহসিকতা, বিক্রম, ধৈর্য এবং দেশপ্রেমিকতার যে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, বিশ্বের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে তার নিদর্শন একান্ত বিরল। নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকার এক রিপোর্টে বলা হয়-বাংলাদেশের অভ্যন্তরে গেরিলা তৎপরতা বৃদ্ধি পাবার ফলে পশ্চিম পাকিস্তানী সামরিক জান্তাদের নির্দেশে সামরিক বাহিনীর লোকেরা পূনঃরায় গ্রামবাসীদের হত্যা এবং বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেবার বর্বর অভিযান শুরু করেছে। গেরিলা সন্দেহে জিঞ্জিরার কত যুবককে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে হত্যা করেছে তার ইয়াত্ত¡া নেই। বুড়িগঙ্গার অপর পারের এই গ্রামটিতে অন্তত ৮৭ জনকে সামরিক বাহিনীর লোকেরা হত্যা করেছে। এদের অধিকাংশই যুবক। নারী এবং শিশুরাও ওদের হাত থেকে রেহাই পায়নি। রাঙ্গামাটি ব্যাপটিস্ট মিশনে হানাদার বাহিনী কর্তৃক আক্রান্ত হয়ে চার্লস আর.হাউজার নামে একজন ধর্মযাজক এবং বহু বাঙ্গালি সন্ন্যাসিনী নিহত হয়।