লোহাগাড়ায় জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ সমাপ্ত

15

‘বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, অগ্রগতির মূল শক্তি’ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে দুই দিনব্যাপী ৪০তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ ও বিজ্ঞান মেলা গত বৃহস্পতিবার বিকেলে সমাপ্ত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন এবং উপজেলা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্লাবের আয়োজনে বিকেলে সমাপনী অনুষ্ঠান উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মেলা প্রাঙ্গণে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) পদ্মাসন সিংহের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন আলহাজ মোস্তফিজুর রহমান কলেজের অধ্যক্ষ এ কে এম ফজলুল হক। মাস্টার দেবাশীষ আচার্য্যরে উপস্থাপনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. ইসমাইল হোসেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. নুরুল ইসলাম, উপজেলা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্লাবের সম্পাদক মোস্তফিজুর রহমান কলেজের গণিত বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ ইলিয়াছ, দিদারুল আলম বিএসসি প্রমুখ।
আলোচনা শেষে প্রধান অতিথি বিজ্ঞান মেলার প্রকল্প ও বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতার ১ম, ২য় এবং ৩য় স্থান অর্জনকারীদের পুরস্কার বিতরণ করেন। বিজ্ঞান মেলায় প্রকল্প প্রদর্শনীতে সিনিয়র গ্রুপে প্রথম স্থান অর্জন করেছে আলহাজ মোস্তফিজুর রহমান কলেজ, ২য় স্থান অর্জন করেছে বার আউলিয়া কলেজ। জুনিয়র গ্রুপে প্রথম- সুখছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়, ২য়- পদুয়া এসিএম উচ্চ বিদ্যালয় ও ৩য়- দক্ষিণ সাতকানিয়া গোলামবারী উচ্চ বিদ্যালয়। বর্জ্য ও পলিথিন থেকে গ্যাস এবং তেল উৎপাদন প্রকল্প দেখিয়ে বিশেষ গ্রুপে প্রথম হয়েছেন ফৌজুল কবির। অন্যদিকে বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতায় সিনিয়র গ্রুপে ১ম- মোস্তফিজুর রহমান কলেজের একাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী অংকিতা পাল, ২য় ও ৩য় হয়েছেন একই কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী মেহেরুন্নিছা নিখাত ও খুরশিদা আকতার শিফা। জুনিয়র গ্রুপে ১ম-দক্ষিণ সাতকানিয়া গোলামবারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র জোবায়ের আল আবরার, ২য়- পদুয়া এসিএম উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র এম আর নাবিল ও ৩য় স্থান অর্জন করেছেন বিজি সেনের হাট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আহসানা আনজুম শাহনুর।
বিজ্ঞান মেলায় উপজেলার স্কুল, মাদ্রাসা ও কলেজ মিলে ১৭টি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। মেলার প্রথম দিন প্রতিষ্ঠানসমূহ নির্ধারিত স্টলে তাদের প্রকল্প উপস্থাপন করে। প্রকল্পের মধ্যে ছিল- লবণ থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন, লিফট তৈরী, রুম হিটার এবং গ্রীণ হাউস, বায়ু বিদ্যুৎ, একটি পরিকল্পিত বসত বাড়ির নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা, টুথপেস্ট তৈরী, কুনো ব্যাঙের হৃদপিন্ড, বিনা পয়সার এসি, জাহাজের অতিরিক্ত লোড নির্দেশক এবং ভূমিকম্প সতর্কীকরণ যন্ত্র, হাইড্রলিক প্রেস, নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহার, এসকেবেটর, ক্যালাইডোস্কোপ, মেগাসিটি ও নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লেন, আটো ট্রাফিক সিগন্যাল, বিদ্যুৎ ছাড়া আলু দিয়ে বাতি জ্বালানো, পলিথিন থেকে গ্যাস ও তেল উৎপাদন ইত্যাদি। মেলার প্রথম দিন শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ প্রচুর দর্শক সমাগম হয়। দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার মেলা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয় নবম-দশম ও একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে জাতীয় বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতা। বিজ্ঞপ্তি