রোগব্যাধি ছড়ানোর শঙ্কায় ইন্দোনেশিয়ায় সর্তকতা

15

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়ার পালু শহর যেন এক মৃত্যুপুরী। ভয়াবহ ভূমিকম্পের পর সৃষ্ট সুনামিতে প্রাণহানির সংখ্যা এক হাজার পাঁচশ’ ছাড়িয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, মাটির নিচে চাপা পড়ে রয়েছে আরও অসংখ্য মরদেহ। ফলে রোগব্যাধি ছড়ানোর শঙ্কায় জারি করা হয়েছে জনস্বাস্থ্য সর্তকতা। শনিবার পালু শহরের উদ্ধারকারী তৎপরতায় অংশগ্রহণকারীদের জন্য এ সর্তকতা জারি করে কর্তৃপক্ষ। দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, সুলাওয়েসি দ্বীপের এ অংশে এখনও হাজার হাজার মানুষ নিখোঁজ রয়েছেন। এক হাজার পাঁচশ’ ৭১ জনের প্রাণহানির ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, বালারোয়া ও পেটাবোতে বিপুল সংখ্যক মানুষ মাটির নিচে চাপা পড়ে রয়েছেন।
ইন্দোনেশিয়ার উদ্ধার কার্যক্রম দলের মুখপাত্র ইউসুফ লতিফ বলেন, উদ্ধার করা অধিকাংশ মরদেহগুলো অক্ষত নয়। উদ্ধারকারীদের জন্য এটা ভয়ানক। দূষণ এড়ানোর জন্য আমাদের খুবই সতর্ক থাকতে হবে। তিনি আরও বলেন, আমাদের উদ্ধারকারী দলকে প্রতিষেধক দেওয়া হয়েছে। তাদের যাতে স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি না হয় এজন্য আরও সতর্ক থাকতে হবে। জনস্বাস্থ্যের জন্যও এটা উদ্বেগজনক। উদ্ধার কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এর মধ্যেই ভয়াবহতার আটদিন পেরিয়ে গেছে। এখন জীবিত উদ্ধারের সম্ভাবনাও খুবই ক্ষীণ।
তবে উদ্ধার তৎপরতা চলছে। দেশটির কর্তৃপক্ষ এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্ধার কার্যক্রম স্থগিত বা বন্ধের কোনো নির্দেশনা দেয়নি। এদিকে গত শুক্রবার ইন্দোনেশিয়ার ভয়াবহ পরিস্থিতিতে দ্রুতই পাঁচ কোটি মার্কিন ডলার অর্থ সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে জাতিসংঘ। সংস্থাটি বলছে, পালুর দুই লাখেরও বেশি মানুষকে মানবিক সহায়তা দেওয়ার প্রয়োজন পড়বে। ইন্দোনেশিয়া বিশ্বের অন্যতম ভূমিকম্পপ্রবণ দেশ। গত জুলাই ও আগস্টে পালু শহর থেকে শত কিলোমিটার দূরের লমবোক দ্বীপে দফায় দফায় ভূমিকম্পে ৫শ’ লোকের প্রাণহানি হয়।