রাঙ্গুনিয়ায় পৃথক অগ্ন্কিান্ডে দোকান ও বসতঘর ভস্মিভুত

রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি

36

রাঙ্গুনিয়া উপজেলার শিলক ও পদুয়া ইউনিয়নে পৃথক অগ্ন্কিান্ডে পুড়েছে ৮ দোকান ও ১টি বসতঘর। এতে আনুমানিক ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি এ অগ্ন্কিান্ডে ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। শিলক ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ড হাজারীখীল এলাকার পালেরটেকে বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে একটি দোকানে হঠাৎ আগুন ধরে যায়। মুহুর্তে আগুন পাশের দোকানগুলোতে ছড়িয়ে পড়ে। এতে মোহাম্মদ ফজল করিমের কুলিং কর্ণার, সেকান্দর আলীর মুদির দোকান, আব্দুল করিমের ডেকোরেশনের দোকান, শাহ আলমের মুদির দোকান ও সারের দোকান এবং উৎপল দত্তের চায়ের দোকান পুড়ে ছাই হয়ে যায়। একই সময় ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড ফিরিঙ্গীখীল এলাকায় আগুনে পুড়েছে অধীর বড়ুয়ার বসতঘর। আগুন লাগার খবরে রাঙ্গুনিয়া ফায়ার স্টেশনের কর্মী ও এলাকাবাসীর যৌথ প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। এতে ৫ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। এদিকে পদুয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা মো. বাহাদুর জানান, পদুয়া ইউনিয়নের দুধ পুকুরিয়া ব্রিজ ঘাটা এলাকায় রাতে আগুন লেগে পুড়ে যায় আবদুল আলমের চা দোকান ও তাজর মুল্লুকের একটি মুরগীর বিক্রয় কেন্দ্র ও অন্যটি সারের দোকান। রহস্যজনক অগ্ন্কিান্ডে এতে ৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। রাঙ্গুনিয়া ফায়ার স্টেশনের টিম লিডার আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, আগুন লাগার খবরে স্টেশনের একটি গাড়ি শিলকে গিয়ে দুই ঘন্টার চেষ্ঠায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। শিলক এলাকার অগ্ন্কিান্ডে ৫ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে।