রাঙামাটিতে জেলা প্রশাসনের সমন্বয় সভা

রাঙামাটি প্রতিনিধি

11

করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯,স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা,ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা এবং জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও তত্ত্বাবধান সংক্রান্ত সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত। গত শুক্রবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে নির্বাহী চেয়ারম্যান (সচিব) বাংলাদেশ অর্থনৈতিক কর্তৃপক্ষ পবন চৌধুরীর সভাপতিত্বে উক্ত সমন্বয় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙামাটি সংসদীয় ২৯৯নং আসনের সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার এমপি। সমন্বয় সভার প্রধান অতিথি দীপংকর তালুকদার বলেন,পার্বত্যাঞ্চলে করোনা ভাইরাসের চেয়েও বড় ভাইরাস হলো অবৈধ অস্ত্রধারি সন্ত্রাসীরা। সারা পৃথিবীর মানুষ এখন মহামারি করোনা ভাইরাস নিয়ে আতংকে আছে কিন্তু পার্বত্যাঞ্চলের অবৈধ অস্ত্রধারিরা এসময়ও বেঁচে বেঁচে পাহাড়ে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের পাখির মত গুলি করে মারছে। তিনি বলেন, আজকের সমন্বয় সভার মাধ্যমে সবিচ মহোদয়কে বলব আপনি এ বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কানে দেবেন। বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক ওজরুরী। পাহাড়ে আজ সন্ত্রাসীদের ভয়ে ত্রাণ বিতরণ বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। তিনি বলেন,সাধারণ পাহাড়িরা সরকারের ত্রাণ নিয়ে আসলে সেখান থেকেও ভাগ দিতে হয় অবৈধ অস্ত্রধারিদের।করোনা ভাইরাস হয়তো বা চলে যাবে কিন্তু পাহাড় থেকে কি অবৈধ অস্ত্রধারিরা চলে যাবে কি?অবৈধ অস্ত্রধারিদের ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীকে আরো কঠোর হতে হবে। সরকার পাহাড়ে পর্যাপ্ত পরিমান ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন। কেউ ত্রাণ পাননি এমন লোক খোজলে পাওয়া যাবেনা। নির্বাহী চেয়ারম্যান ও সচিব পবন চৌধুরী বলেন, সারা দেশের ন্যায় রাঙামাটি জেলা করোনায় এখনো ভাল অবস্থানে রয়েছেন। এ পরিস্থিতি আপনাদের ধরে রাখতে হবে। জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে শুক্রবারের সমন্বয় সভায় আগত প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার এমপি,জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃশ কেতু চাকমা,সদর জোন কমান্ডার লেঃ কর্ণেল রফিকুল ইসলাম পিএসসি মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী,জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজি মুছা মাতব্বর,সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহীদুজ্জামান মহসিন রোমানসহ বিভিন্ন দপ্তরের সামরিক বেসামরিক কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ যারা উপস্থিত হয়ে করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছেন তার মধ্যে সবাই সদর জেনারেল হাসপাতালে পিসিআর ল্যাব,আইসিইউ বেড ও ভেন্টিলেটর দাবি করেছেন। সত্যি এ দাবিটুকু সম্পূর্ণ যুক্তি যুক্ত। আপনাদের এ দাবি পূরণ করা হবে। আর জরুরী ভাবে কিডনি ডায়ালাইসিস ও হার্ডের রোগির জন্য আইসিইউ বেডের কথা বলেছেন তাও পূরণ করা হবে। তবে সব কথার এক কথা হলো সবাইকে সরকারের স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে এবং সবাই সচেতন হতে হবে। সমতলের চেয়ে পাহাড়ের লোকজন অনেকটা সচেতন আছে বলে আমার মনে হচ্ছে। রাঙামাটি সিভিল সার্জনকে উদ্দেশ্য করে বলেন সচিব বলেন, এখনই চাওয়ার সময় আপনাকে চাইতে হবে। করোনা মোকাবেলায় আপনার কি কি চাহিদা আছে আপনি চান বাকিটা আমি দেখবো।