রাঙামাটিতে চাকমা কালচার কাউন্সিল এর আত্মপ্রকাশ

রাঙামাটি প্রতিনিধি

20

চাকমা কালচার কাউন্সিল বাংলাদেশ নামে নতুন একটি সংগঠন আত্মপ্রকাশ করেছে। এক ঝাঁক তরুণ সংস্কৃতিকর্মীর উদ্যোগে তৈরি হয়েছে সংগঠনটি। এ সংগঠন কাজ করবে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত পাহাড়ি স¤প্রদায় চাকমা সংস্কৃতি, ভাষা, সাহিত্য ও ইতিহাস বিষয়ে। চাকমাদের বিলুপ্তপ্রায় সংস্কৃতির পুনরুদ্ধার, সংরক্ষণ, বিকাশ ও উন্নয়নে স্বেচ্ছা সেবায় কাজ করবেন বলে জানান উদ্যোক্তারা। তারা বলেন, এটি একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক, সামাজিক, সংস্কৃতি ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এর কার্য এলাকা হবে দেশব্যাপী। গত শুক্রবার রাঙামাটিতে আয়োজিত এক আলোচনা সভার মাধ্যমে সংগঠনটির আত্মপ্রকাশ করা হয়।
এ উপলক্ষে সকালে শহরের জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি লিটন চাকমা। এতে প্রধান অতিথি উপস্থিত ছিলেন কবি ও সাহিত্যিক মৃত্তিকা চাকমা। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াৎ হোসেন রুবেল, সঙ্গীতশিল্পী রঞ্জিত দেওয়ান, সংগঠনের উপদেষ্টা ও গণমাধ্যমকর্মী সুশীল প্রসাদ চাকমা, পুলিশ পরিদর্শক প্রিয়দর্শী চাকমা, শিক্ষক ভদ্রসেন চাকমা, শান্তিময় চাকমা, সাগরিকা চাকমা প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতেই মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে চাকমা কালচার কাউন্সিল বাংলাদেশ নামে নতুন সংগঠনটির আত্মপ্রকাশ করেন অতিথিরা। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, সংস্কৃতি ছাড়া একটি জাতির উন্নতি হতে পারে না। যে জাতির সংস্কৃতি উন্নত সে জাতি সমৃদ্ধ।
চাকমাদের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি খুবই নান্দনিক। কিন্তু কালের বিবর্তণে আধুনিকতার ছোঁয়ায় এবং দেশী বিদেশী ভিন্ন সংস্কৃতির তালে হারিয়ে যেতে বসেছে চাকমা জাতিগোষ্ঠীর সংস্কৃতি। তা পুনরুদ্ধার, বিকাশ ও সংরক্ষণ জরুরি। এ অবস্থায় হারিয়ে যাওয়া নিজেদের সংস্কৃতি পুনরুদ্ধারসহ তা বিকাশ ও সংরক্ষণে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের কিছুসংখ্যক উচ্চশিক্ষিত সংস্কৃতিপ্রেমী ও স্বেচ্ছাসেবী তরুণ-তরুণী এগিয়ে এসেছেন। তারা কাজ করবেন চাকমা কালচার কাউন্সিল বাংলাদেশ সংগঠন দিয়ে।