মাঠে সেনাবাহিনী

রাউজানে তিনশ প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টিনে

রাউজান প্রতিনিধি

8

রাউজান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন ও পৌর এলাকায় দুবাই, আবুধাবী, ওমান, কুয়েত, কাতার, সৌদি আরব, ইতালী, ভারত থেকে দেশে ফিরে আসা ৩০০ জন প্রবাসী হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছে। তাদের মধ্যে দু’জন ইতালী প্রবাসী রয়েছেন। গতকাল বুধবার সকাল থেকে রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগ রাউজানে সভা-সমাবেশ, বিয়ে, মেজবান, ধর্মীয় অনুষ্ঠান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, হোটেল-রেস্তোরাঁ, জনসমাগম নিষিদ্ধ করে রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় মাইকিং করে প্রচারণা চািলয়েছেন।
গত মঙ্গলবার দুপুর থেকে রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় সেনাবাহিনীর সদস্যরাও টইল দিচ্ছেন।
এছাড়াও নিম্ম আয়ের মানুষকে সহযোগিতার অংশ হিসেবে স্থানীয় সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী প্রদত্ত মাক্স রাউজান উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেনায়েদ কবির সোহাগ রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্ল্রাহ, রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নুর আলম দীনের হাতে তুলে দেন।
গতকাল বুধবার সকাল থেকে চট্টগ্রাম-রাঙামাটি সড়ক, চট্টগ্রাম-কাপ্তাই সড়কে যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ ছিল। রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় খাদ্য ও ঔষধের দোকান ব্যতিত দোকান ও মাকের্টগুলোও ছিল বন্ধ। রাউজানের বিভিন্ন এলকায় সড়কে ও হাট বাজারগুলো ফাঁকা থাকতে দেখা গেছে। রাউজানে ১৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে কোয়ারেন্টিন স্পেস হিসাবে প্রস্তত রাখা হয়েছে। রাউজান উপজেলা সদরে সুলতানপুর ৩১ শয্যা হাসাপাতান ও রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৮ শয্যার দুইটি আইসোলেশন ওয়ার্ড প্রস্তুত রাখা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার জোনায়েদ কবির সোহাগ বলেন, করোনা ভাইরাস এর প্রাদুর্ভাব থেকে জনগণকে রক্ষা করতে রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় জনগণকে সচেতন করার জন্য ব্যাপকভাবে মাইকিং, লিফলেট দিয়ে প্রচারণা চলছে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে রাউজান উপজেলা প্রশাসন সকল প্রকার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। এর প্রাদুর্ভাব থেকে রক্ষায় অফিসের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য সংক্রামক প্রতিরোধকারী পোষাক দেওয়া হয়েছে। সাধারণ জনগণকে রক্ষার জন্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি ও তার ছেলে ফারাজ করিম চৌধুরী ভাইরাস প্রতিরোধক উপকরণ প্রদান করেছেন।
এদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ রাউজান থানার ওসি কেপায়েত উল্লাহ, রাউজান পৌরসভার প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ, রাউজানের প্রতিটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে জনগণকে রক্ষায় লিফলেট, মাক্স ও হ্যান্ড ওয়াস-সাবান বিতরণ করেছেন। সাংসদের ছেলে ফারাজ করিম চৌধুরীর উদ্যোগে করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন দরিদ্র পরিবারের সদস্যদের মধ্যে চাউল, ডালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় বিতরণ করেন সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের সভাপতি সাইদুল ইসলামসহ সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের কর্মকর্তা-সদস্যবৃন্দ। অপরদিকে মরহুম শফিকুল ইসলাম চৌধুরী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মরহুম শফিকুল ইসলাম চৌধুরীর ছেলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম চৌধুরী রাউজান পৌরসভার মুন্সির ঘাটা, দলিলাবাদসহ রাউজানের বিভিন্ন এলাকায় চাউল, ডাল, তেল, সাবান, পেয়াজ ও মাক্স বিতরণ করেন। ডাবুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান চৌধুরী ডাবুয়ার বিভিন্ন এলাকায় মাক্স ও সাবান বিতরণ করেন।
এদিকে ইতালী থেকে আসা রাউজান পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের আইলী খীল এলাকার আবছার, বিনাজুরীর রুবেল বড়–য়াকে ও তাদের পরিবারের সকলকে আগামি ১৫ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। গত মঙ্গলবার বিনাজুরীর রুবেল বড়–য়ার ভাইয়ের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেও অভিযান চালানো হয়। এরপর ইতালী থেকে আসা প্রবাসী রুবেল বড়–য়ার ভাইকে আগামি ১৫ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ প্রদান করা হয়। এছাড়াও রাউজান পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের সুলতানপুর কাজী পাড়ার ইকবাল নামের এক প্রবাসী মধ্যপ্রাচ্য থেকে দেশে এসে হোম কোয়ারেন্টিন অমান্য করায় দশ হাজার টাকা জরিমানা গুনেছেন। প্রবাসী ইকবাল ও তার পরিবারের সদস্যদেরও আগামি ১৫দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ প্রদান করা হয়।