সাংবাদিক-জনতা সমাবেশ

রাইফার মৃত্যুর বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক

16

সাংবাদিক রুবেল খানের কন্যা রাফিদা খান রাইফার মৃত্যুর ঘটনায় বিএমডিসির দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছে সাংবাদিক সমাজ। একই সাথে অবিলম্বে সঠিক তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ, অভিযুক্ত চার চিকিৎসকের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল এবং রাইফা হত্যার সুষ্ঠু বিচারের দাবি করা হয়েছে। গতকাল শনিবার চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) উদ্যোগে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক-জনতার সমাবেশ থেকে এসব দাবি জানানো হয়।
সমাবেশ বক্তারা বলেন, ডাক্তারদের বিরুদ্ধে বিএমডিসি নিরপেক্ষ প্রতিবেদন দিতে পারেননি। বিএমডিসি কর্তৃপক্ষ ডাক্তারদের পক্ষ নিয়ে একপেশে প্রতিবেদন আদালতে জমা দিয়েছে। ভিকটিম রাইফার বাবার বক্তব্য নেওয়ার প্রয়োজনও মনে করেনি। রাইফার মতো আর যেন কোনো মানুষ চিকিৎসকদের অবহেলায় মেডিকেল মার্ডারের মুখোমুখি না হন সেজন্যই আন্দোলন করছি আমরা। মাদার অব হিউমেনিটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাইফা হত্যাসহ এ ধরণের ঘটনার সুবিচার করবেন বলে বিশ্বাস করে চট্টগ্রামের সাংবাদিক সমাজ।
সমাবেশে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে রাইফার বাবা সাংবাদিক রুবেল খান বলেন, অভিযুক্ত চিকিৎসকদের বাঁচাতে চট্টগ্রামের বিএমএ নেতাদের একটি অংশ ও ম্যাক্স হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নানা অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তারা ক্ষমতা ও টাকার জোরে সবকিছু নিজেদের পক্ষে নেওয়ার চেষ্টা করছে। আমি আমার মেয়ে হত্যার সুষ্ঠু বিচার চাই।
সিইউজের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামলের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন বিএফইউজে’র সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, সিইউজের সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, বিএফইউজে’র যুগ্ম মহাসচিব মহসিন কাজী, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, নির্বাহী সদস্য কাজী আবুল মনসুর ও ম. শামসুল ইসলাম, সিইউজের যুগ্ম সম্পাদক সবুর শুভ, সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম ইফতেখারুল ইসলাম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আহমেদ কুতুব, নির্বাহী সদস্য উত্তম সেনগুপ্ত, বিএফইউজের নির্বাহী কমিটির সদস্য রাইফার বাবা রুবেল খান এবং আজাহার মাহমুদ, সিইউজে’র টিভি ইউনিট প্রধান অনিন্দ্য টিটো, পূর্বদেশ ইউনিট প্রধান রতন কান্তি দেবাশীষ, কর্ণফুলীর ইউনিট প্রধান মোহাম্মদ আলী পাশা প্রমুখ।
সমাবেশে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য দেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা খোরশেদ আলম, ১৪ দলের মহানগর নেতা স্বপন সেন, মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুম, মহসিন কলেজ ছাত্রলীগ নেতা মাইমুন উদ্দিন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের চৌধুরী প্রমুখ।
ডাক্তার আংকেল, রাইফার দোষ কী ছিল ? :
সমাবেশে সবার নজর কাড়ে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী প্রাচী রহমানের নিজের হাতে লেখা একটি প্ল্যাকার্ড। প্রাচীর প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল, ‘জাস্টিস ফর রাইফা/ডাক্তার আংকেল, রাইফার দোষ কী ছিল?’ বাবা সাংবাদিক আল রাহমানের হাত ধরে সমাবেশে আসেন আট বছর বয়সী প্রাচী। সমাবেশে আসা প্রত্যেকে এ প্ল্যাকার্ডটি দেখে কিছুটা সময়ের জন্য থামকে যান।
প্রদীপ প্রজ্জ্বলন :
রাইফার মৃত্যুবার্ষিকীতে এমএ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন এলাকায় গতকাল শনিবার রাতে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করেছে প্রপার ট্রিটমেন্ট মুভমেন্ট (পিটিএম)। পিটিএম এর পক্ষ থেকে প্রদীপ প্রজ্জলনকৃত এলাকাকে রাইফা চত্বর ঘোষণার প্রস্তাব করা হয়। প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের স্মরণাপন্ন হবে পিটিএম।
উল্লেখ্য, গলায় ব্যথা নিয়ে গত বছরের ২৮ জুন বিকেলে নগরীর ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয় শিশু রাইফাকে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন মৃত্যু হয় তার। ওই বছরেরই ১৮ জুলাই চকবাজার থানায় হাসপাতালের চার চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন করেন সাংবাদিক রুবেল খান। দুই দিন পর ২০ জুলাই পুলিশ তা মামলা হিসেবে গ্রহণ করে। মামলায় যে চার চিকিৎসককে আসামি করা হয়, তারা হলেন, শিশু বিশেষজ্ঞ বিধান রায় চৌধুরী, ম্যাক্স হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক দেবাশীষ সেন গুপ্ত, শুভ্র দেব ও ম্যাক্স হাসপাতালের পরিচালক ডা. লিয়াকত আলী।