যৌতুকের জন্য তাকে নির্যাতন করা হতো রাঙ্গুনিয়ায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি

21

রাঙ্গুনিয়ায় এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। উপজেলার সরফভাটা ইউনিয়নের মীরেরখীল গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। তার নাম পারভিন আকতার (২৬)। সে রাঙ্গুনিয়া পৌরসভার উত্তর ঘাটচেক এলাকার মোহাম্মদ রাজুর কন্যা। বিষপানে সে আত্মহত্যা করেছে বলে তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন জানালেও তার পরিবার বলছে তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এই নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। গত ৯ জুলাই সকালে নিহত পারভিনের লাশ দাফন করা হয়।
নিহত পারভিনের ছোট ভাই মোহাম্মদ মিজান বলেন, উপজেলার সরফভাটা ইউনিয়নের মীরেরখীল গ্রামের মুছার ঠিলা এলাকার মো. ইলিয়াছের পুত্র ভ্যানচালক মোহাম্মদ সেকান্দরের সাথে গত ১০ বছর আগে আমার বোনের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে ৩ পুত্র সন্তান রয়েছে। গত ৭ জুলাই রাত ১১টার দিকে আমার বোন বিষপান করেছে বলে খবর দেয় শ্বশুরবাড়ির লোকজন। তারা আমার বোনকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আনলে অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত তিনটার দিকে তার মৃত্যু হয়। তার লাশ চট্টগ্রাম পাচঁলাইশ থানা পুলিশ এসে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করেন। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ ফেরত দিলে সোমবার সকালে তার লাশ দাফন করা হয়।
নিহতের ছোটবোন নারগিছ আক্তার বলেন, ‘আমরা দুই ভাই চার বোনের মধ্যে পারভিন সবার বড়। সামাজিকভাবে বিয়ে হলেও বিভিন্ন যৌতুকের দাবিতে তার শ্বশুর, শ্বাশুড়ি, ননদ, দেবর মিলে তাকে নির্যাতন করতো। এই নিয়ে বিভিন্ন সময় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে বৈঠকে বসেছিল। কিন্তু এরপরেও তাদের নির্যাতন থামেনি। তাদের থেকে বাঁচতে দীর্ঘ আড়াই মাস আমার বোন বাপের বাড়িতে থেকেছে। পরে গত ঈদের চারদিন পর আর নির্যাতন করবেনা বলে অঙ্গিকার করে তার স্বামী এসে নিয়ে যায়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাদের নির্যাতনের কারণে আমার বোন মারা যায়। আমার বোন খুবই শান্ত প্রকৃতির মেয়ে। সে নিজে নিজে বিষ খেতে পারে না। তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। আমরা তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছি।’ এই বিষয়ে রাঙ্গুনিয়া থানার ওসি ইমতিয়াজ মো. আহসানুল কাদের ভূঞা বলেন, এই বিষয়ে আমরা এখনো কোন অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেব।