যুক্তরাষ্ট্রের চাপ আঞ্চলিক তেল রপ্তানিতে প্রভাব ফেলবে

15

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা ইরানের অপরিশোধিত তেল কিনতে বাধা দিলে আঞ্চলিক তেল রফতানি হুমকির মুখে পড়বে। মঙ্গলবার ইরানের প্রেসিডেন্টের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রকাশিত বিবৃতিতে হাসান রুহানি এ মন্তব্য করেন। এর আগে ইরানের কর্মকর্তারা বলেছিলেন, ইরানের বিপক্ষে যুক্তরাষ্ট্র কোনো প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ নিলে তারা হরমুজ প্রণালী বন্ধ করে দেবে। তেল পরিবহনের অন্যতম প্রধান রুট হচ্ছে এই হরমুজ প্রণালী।
বিবৃতিতে বলা হয়, আমেরিকানরা চায় ইরানের তেল রপ্তানিতে সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হোক। তাদের এই বক্তব্যের অর্থ তারা নিজেরাই ঠিক মতো বুঝেছেন কিনা সন্দেহ। যখন এই অঞ্চলের বাকিদের তেল রফতানি হচ্ছে, তখন ইরানিদের তেল রফতানি না করার কোনো কারণই নেই। গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তারা ইরান থেকে তেল আমদানি না করার কথা জানান। ট্রাম্প প্রশাসনের এক বিবৃতিতে নভেম্বরের মধ্যে ইরান থেকে তেল আমদানি বন্ধ না করলে নিষেধাজ্ঞার হুমকিও দেওয়া হয়।
ইরানের প্রেসিডেন্টের ওয়েবসাইটের বিবৃতিতে রুহানি বলেছেন, আপনারা যদি এটা করেন তবে এর ফলাফলও আপনাদের দেখতে হবে। বিশ্বে তেল রপ্তানিতকারক দেশগুলোর মধ্যে ইরান তৃতীয়। তারা প্রতিদিন প্রায় দুই মিলিয়ন ব্যারেল অপরিশোধিত তেল রফতানি করে। এদিকে শনিবার হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, সৌদি নেতা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে প্রতিশ্রæতি দিয়েছেন যে, দেশটি প্রয়োজনে তেল উৎপাদন বাড়াতে পারবে। ধারণক্ষমতার বাইরে তারা প্রতিদিন ২ মিলিয়ন ব্যারেল তেল রফতানি করতে পারবে।