মেয়রের সাথে ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতের সৌজন্য সাক্ষাৎ

37

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ আ জ ম নাছির উদ্দীনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত মিসেস মারিয়া এননিক বউরডিন। বৃহস্পতিবার সকালে নগর ভবনে মেয়রের দপ্তরে এই সাক্ষাতপর্ব অনুষ্ঠিত হয়। সাক্ষাতে রাষ্ট্রদূত মেয়রের কর্মপরিধি, চট্টগ্রামের সার্বিক চিত্র এবং সেবা সংক্রান্ত দিক সম্পর্কে জানতে চান। মেয়র চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নাগরিক সেবা সংক্রান্ত নানা দিক তুলে ধরে বলেন, চট্টগ্রাম অর্থনৈতিক অঞ্চল, বন্দরনগরী ও বাণিজ্যিক রাজধানী। সেই দৃষ্টিকোণ থেকে চট্টগ্রাম গুরুত্বপূর্ণ একটি শহর। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম নগরীর এই সিটি কর্পোরেশন নাগরিকদের স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, আলোকায়ন, পরিচ্ছন্ন পরিবেশ, যোগাযোগ ও অবকাঠামোগত দিকগুলোতে সেবা দিয়ে থাকে। এ কর্পোরেশনের আয়ের উৎস পৌরকর, ট্রেড লাইসেন্স ফি, ভূমি কর ফি ইত্যাদি। তিনি বলেন, সরকারের বিভিন্ন সংস্থা নাগরিক সেবায় নিয়োজিত আছে। তন্মধ্যে উন্নয়ন কাজ করেন চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, পয়ঃনিষ্কাষণ ও পানি সরবরাহে চট্টগ্রাম ওয়াসা, চট্টগ্রাম বন্দর নিয়ন্ত্রণ করেন বন্দর কর্তৃপক্ষ। এভাবে ভিন্ন সংস্থা সরকারের ভিন্ন ভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিয়ন্ত্রিত হয়। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন সরকারের স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে নিয়ন্ত্রিত একটি সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান যার সুনির্দিষ্ট কিছু দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। সরকারের সেবাধর্মী অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সাথে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে সহযোগিতা দিয়ে থাকে। চট্টগ্রামে ইপিজেড, কোরিয়ান ইপিজেড, কর্ণফুলী ইপিজেড, বিভিন্ন বাহিনীর দপ্তর, তেল স্থাপনাসহ গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানসমূহ বিদ্যমান। দেশের আমদানি-রপ্তানির বেশিরভাগ অংশ চট্টগ্রাম বন্দরের মাধ্যমে পরিচালিত হয়। এর ফলে দেশের অর্থনীতির চালিকা শক্তি হিসেবে চট্টগ্রাম গুরুত্বের অংশীদার। তিনি সকল দিক বিবেচনায় নিরাপদ বিনিয়োগের উত্তম স্থান চট্টগ্রামে নানা ক্ষেত্রে বিনিয়োগে রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে ফ্রান্সের সরকারের প্রতি আহবান জানান।
এ সময় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা মিসেস নাজিয়া শিরিন, সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলরসহ রাষ্ট্রদূতের সাথে আগত কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি