ঘূর্ণিঝড় ডোরিয়ান

মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩০ নিখোঁজ ‘অগণিত’

19

শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ডোরিয়ানে বাহামাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩০ এ পৌঁছেছে বলে দেশটির কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন। আটলান্টিক মহাসাগর থেকে উঠে আসা ৫ মাত্রার এ হারিকেনের তাÐবে নিখোঁজের সঠিক সংখ্যা এখনও নিশ্চিত না হওয়ায় মৃতের সংখ্যা ‘অবিশ্বাস্যরকমের বেশি’ হতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন তারা। দ্বীপপুঞ্জটির সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা আবাকো দ্বীপে মৃতদেহ মুড়ে রাখার জন্য অতিরিক্ত ২০০টি ব্যাগ পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। রোববার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত বাহামাসের উত্তরাঞ্চলে ধ্বংসযজ্ঞ চালানো ডোরিয়ান এখন অনেকখানি দুর্বল হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ ও নর্থ ক্যারোলাইনা উপকূলের পথে রয়েছে। ক্যারিবীয় অঞ্চলে চলতি মৌসুমে আঘাত হানা এ শক্তিশালী ঝড়ে আবাকো ও গ্র্যান্ড বাহামায় নিখোঁজের সংখ্যা কয়েকশ থেকে কয়েক হাজার ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছেন। বৃহস্পতিবার বাহামাসের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডুয়ানে স্যান্ডস ডোরিয়ানে নিহতের সংখ্যা ‘হতভম্ব করে দিতে’ পারে বলে সতর্ক করেছেন।
স্থানীয় এক রেডিওতে তিনি বলেছেন, “মানুষের ভোগান্তি ও মৃতের সংখ্যা সম্বন্ধে অবিশ্বাস্য তথ্যের ব্যাপারে জনগণের প্রস্তুত থাকা প্রয়োজন।” দ্বীপটির ৭৬ হাজারের বেশি মানুষের মানবিক ত্রাণ সাহায্য প্রয়োজন বলে ধারণা দিয়েছে জাতিসংঘ। দুর্যোগ পরবর্তী পরস্থিতি মোকাবেলায় স্যান্ডস বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও জাতিসংঘের সহযোগিতাও চেয়েছেন বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত আবাকো দ্বীপটি কার্যত বসবাস অযোগ্য হয়ে পড়েছে বলেও জানিয়েছে তারা। ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মৃতদেহ, পানি ও খাদ্য সংকটে সেখানকার পরিস্থিতি সঙ্গীন। লুটপাট ঠেকাতে দ্বীপটিতে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীও মোতায়েন করা হয়েছে। বিমান থেকে ধারণ করা ভিডিওতে আবাকো দ্বীপে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি দৃশ্যমান হয়েছে। দ্বীপটির বন্দর, দোকানপাট ও কর্মস্থল, একটি হাসপাতাল ও বিমানবন্দরের রানওয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, এরমধ্যে কোনো কোনোটি খÐ খÐ হয়ে উড়ে গেছে। দ্বীপটিতে এরই মধ্যে কিছু পরিমাণ ত্রাণও পৌঁছেছে। উদ্ধারকর্মীরা মৃতদেহের পাশাপাশি নিখোঁজদের সন্ধানেও তৎপরতা বাড়িয়েছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।