মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সভায় বক্তারা

মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরাই নৌকার বিজয় আনবে

7

দারুল ফজল মার্কেটস্থ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের আয়োজনে ১ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধ দিবস সরকারিভাবে উদযাপনের দাবিতে আলোচনাসভা সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড চট্টগ্রাম মহানগর এর আহবায়ক মছরুর হোসেন। সভা সঞ্চালনা করেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড চট্টগ্রাম মহানগর সদস্য সচিব হোসেন সরওয়ার্দি। সভায় মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে যাঁরা দেশ এনেছে তাঁদের জন্য মুক্তিযোদ্ধা দিবস ঘোষণার দাবি জানানো হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মহানগর সহকারী কমান্ডার খোরশেদ আলম বলেন মহান মুক্তিযুদ্ধে নয় মাস রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মধ্য দিয়ে জীবন দিয়ে স্বাধীন করা এই বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে চিরদিন সমুজ্জ্বল রাখার জন্য মুক্তিযোদ্ধা দিবস হিসেবে ১ ডিসেম্বরকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য চট্টগ্রাম মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড দাবি জানান। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের অকৃত্রিম চেতনায় মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের সর্বস্তরের জনসাধারণ অংশগ্রহণ করে পাকিস্তনী শাসন-শোষণ’র নির্মম বৈষম্যের নিগড় থেকে বের করে বাংলাদেশের অভ্যূদয় ঘটায় মুক্তিযোদ্ধারা। তাই নতুন প্রজন্মসহ সর্বস্তরের মানুষের কাছে মুক্তিযুদ্ধের মৌলিক সত্য ইতিহাস তুলে ধরার জন্য ১ ডিসেম্বরকে মুক্তিযোদ্ধা দিবস হিসেবে সরকারিভাবে ঘোষণা আজ সময়ের দাবি। তিনি বলেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরাই নৌকার বিজয় আনবে।
মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডের সহকারী কমান্ডার মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র বিশ্বাস বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের জন্য মুক্তিযোদ্ধার যে কোন দাবি আদায়ের জন্য সকল মুক্তিযোদ্ধাদের ঐক্যবদ্ধ হওয়া বড় বেশি প্রয়োজন আজ। সভায় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান শাহেদ মুরাদ শাকু, ইফতিয়াজ সাঈদ সরদার, আবদুর রহিম শামীম, মেজবাহ উদ্দীন আজাদ, আশরাফুল হক টিটু, কাজী রাজিশ ইমরান, মিজানুর রহমান সজীব, সাজ্জাদ হোসেন, এমরান খন্দকার, মিস লিমা, নয়ন তারা, বিবি গুল জান্নাত, পপি, জাওয়াদ আল হাসিব বাবান, আশরাফুল ইসলাম, অলক দে, আল মাসুদ, মো বেলাল, মো হাফেজ, নাজিম উদ্দিন, মো. ইকবাল সরকার, শেখ সাদীক, পেয়ার আহম্মদ, মো. মনজুর রহমান প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি