মিঠাপানির মাছের দাম কমেছে, বেড়েছে ডিমের

নিজস্ব প্রতিবেদক

15

বাজারে চলতি সপ্তাহের চেয়ে মিঠাপানির মাছের দাম কিছুটা কমেছে। তবে বেড়েছে ডিমের দাম। নতুন কিছু সবজির দাম বাড়লেও কিছু সবজির দাম কমেছে। গত সপ্তাহে মুরগির ডিম প্রতি ডজন ৯৫ টাকায় বিক্রি হলেও গতকাল বৃহস্পতিবার বিক্রি হয়েছে ১০০ টাকায়। গত সপ্তাহে ফুলকপি ২০০ টাকায় বিক্রি হলেও গতকাল বিক্রি হয়েছে ১৬০-১৮০ টাকা কেজি। গতকাল বৃহস্পতিবার নগরীর বকশির হাট বাজারে গিয়ে এ চিত্র মেলে।
ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বাজারে শীতকালীন আগাম সবজির মধ্যে শিম মানভেদে প্রতিকেজি ১০০-১২০ টাকা, পটল ৫০ টাকা, বাধাকপি ৫০-৬০ টাকা, নুতন বেগুন ৭০-৭৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। তবে একই বেগুন গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল কেজি ৫০-৬০ টাকা। অন্যদিকে ছোট বেগুন গত সপ্তাহে ১০০ টাকায় বিক্রি হলেও গতকাল বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা কেজি। বাজারে ঢেঁড়স, উচ্ছে, মুলা, শশা, তিতকরলা ৬০, বরবটি, কচুর লতি, ওলকচু, চালকুমড়া (ঝালি) ৫০, কচুর চড়া, ধুন্দল, ঝিঙে ৪০ টাকা, কাকরল ৪০-৫০, পেঁপে, চিচিঙ্গা, মিষ্টিকুমড়া ৩০ টাকা ও টমেটো বিক্রি হয়েছে ৭৫-৮০ টাকা কেজিতে। কাঁচা মরিচ বিক্রি হয়েছে প্রতিকেজি ৬০-৮০ টাকায়।
বকশির হাট বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. খলিল বলেন, ‘গত সপ্তাহের চেয়ে কিছু কিছু সবজির দাম বেড়েছে, কিছু সবজির দাম কমেছে। তবে শীতকালীন সবজির যোগান বাড়তে শুরু করলেও আগামী দুয়েক সপ্তাহের মধ্যে দাম কমতে পারে।’
সকাল ও বিকেলে বসা বাজারটিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে তেমন জমজমাট ছিল না মাছের বাজার। তবে মিঠা পানির মাছের দাম ছিল তুলনামূলকভাবে কম। কাতলা মাছ সাইজভেদে প্রতিকেজি ১৬০-২৩০ টাকা, রুই ২২০, তেলাপিয়া ১৩০, শরপুঁটি ২০০, কার্পু ২০০ টাকা, আইঁড় মাছ প্রতিকেজি ৪৫০-৫০০ টাকা ও বাটা মাছ প্রতিকেজি ৪০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া পোয়া ১৫০ টাকা, বোলপোয়া ৩২০ টাকা, কালিচান্দা ৪০০ টাকা, লইট্টা ১০০ টাকা, দেশি কোরাল ৩২০ টাকা, কই কোরাল ৫০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। তাছাড়া ৮০০-৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ মাছ বিক্রি হয়েছে প্রতিকেজি ৯০০ টাকায়।
অন্যদিকে বকশির হাট বাজারে প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি ১২০ টাকা, সোনালী জাতের মুরগি ২২০ টাকা ও দেশি মুরগি ৩৬০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। বাজারটিতে খাসির মাংস বিক্রি হয়েছে ৭০০-৭৫০ টাকা কেজি দরে।