টেকনাফ উপকূলে বিজিবির অভিযান

মালয়েশিয়া পাচারকালে ৫০ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার তিন দালাল আটক

টেকনাফ প্রতিনিধি

6

কক্সবাজারের টেকনাফ উপকূলীয় এলাকা দিয়ে সাগরপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার প্রস্তুতিকালে ৩ দালালকে আটকের পাশাপাশি ৫০ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে এ পৃথক অভিযান চালায় পুলিশ ও বিজিবি। উদ্ধারকৃত রোহিঙ্গাদের মধ্যে ১৪ জন পুরুষ ও ৩৬ জন মহিলা। তাদের স্ব স্ব ক্যাম্পে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। আটককৃত দালালরা হলেন টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের জাহাজপুরা এলাকার হাবিব উল্লাহর ছেলে মহিবুল্লাহ (২০), দমদমিয়া এলাকার আব্দুল করিমের ছেলে মো. হুমায়ুন (১৮) ও বড় ডেইল এলাকার মোহাম্মদ উল্লাহর ছেলে মামুন (২২)।
২ বিজিবির অধিনায়ক লে, কর্নেল আছাদুদ জামান চৌধুরী জানান, রাতে টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ ঘোলার চর এলাকা থেকে সাগরপথে মালয়েশিয়া যাওয়ার প্রস্তুতির সময় ১১ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়। এসময় দালালচক্রের এক সদস্যকে আটক করা হয় এবং অপর অভিযানে বাহারছড়া ইউনিয়নের নোয়াখালী পাড়া সাগরতীরবর্তী এলাকায় অভিযানে এক দালাল ও ১৮ জন রোহিঙ্গা নাগরিককে আটক করা হয়েছে। সবমিলিয়ে একরাতের অভিযানে টেকনাফ উপকূল থেকে মালয়েশিয়াগামী ৩০ রোহিঙ্গা ও দুই দালালকে আটক করতে সক্ষম হয় বিজিবি।
বিজিবির হাতে উদ্ধারকৃত রোহিঙ্গারা প্রত্যেকে উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাসরত বলে জানিয়েছেন তারা। তাদের মধ্যে উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পের ৮ জন, থাইংখালী ক্যাম্পের ৫ জন, টেকনাফের লেদা ক্যাম্পের ৮ জন, দমদমিয়া ক্যাম্পের ৭ জন, উনচিপ্রাং ক্যাম্পের একজন ও জাদিমুরা ক্যাম্পের এক জন। উদ্ধারকৃত রোহিঙ্গাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে নিজ নিজ ক্যাম্পে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে এবং দালালদের ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
অপরদিকে বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক আনোয়ার হোসেন জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে পরদিন ভোর পর্যন্ত বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর ও বড় ডেইল এলাকায় অভিযান চালিয়ে এক দালালসহ ২০ জন রোহিঙ্গাকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত রোহিঙ্গারা মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য শামলাপুর এলাকায় জমায়েত হয়েছিল।
টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, মালয়েশিয়া যাওয়ার প্রস্তুতির খবর পেয়ে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে। এসময় বাহারছড়া ইউনিয়নের দুইটি গ্রামে অভিযান চালিয়ে ২০ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়েছে। এদের সাথে এক দালালকেও আটক করা হয়েছে। উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হয়েছে এবং আটককৃত দালালের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।