মার্কিন বিচারবিভাগ নিয়ে ট্রাম্প-প্রধান বিচারপতির দ্বৈরথ

16

যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় এক বিচারককে নিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনার কড়া জবাব দিয়েছেন মার্কিন প্রধান বিচারপতি জন রবার্টস। বিরল এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেছেন, মার্কিন বিচারকরা কোনও নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করেন না, তারা বিচারপ্রার্থী সবার সমান অধিকার নিশ্চিতে কাজ করেন। স্বাধীন বিচারবিভাগের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সব নাগরিকেরই কৃতজ্ঞ থাকা উচিত বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।
সোমবার মেক্সিকো সীমান্ত দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে ইচ্ছুক অভিবাসন প্রত্যাশীদের আশ্রয় প্রার্থনার আবেদন ঠেকাতে ট্রাম্প প্রশাসনের নেওয়া পদক্ষেপের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের চক্ষুশূল হন বিচারক জন টাইগার। সান ফ্রান্সিসকোর নাইন্থ সার্কিট আপিল আদালতের এ বিচারক সাবেক ডেমোক্রেট প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার আমলে নিয়োগ পেয়েছিলেন। সেদিকে ইঙ্গিত করে মঙ্গলবার টুইটারে ট্রাম্প বলেন, “ইনি ওবামার বিচারক। আমি আপনাদের বলতে চাই, এরকমটা আর হচ্ছে না।” মার্কিন প্রেসিডেন্টের এ বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বুধবার রবার্টস বলেন, “আমাদের ওবামার বিচারক নেই, নেই ট্রাম্পের, বুশের কিংবা ক্লিনটনের বিচারক।
“আমাদের যা আছে তা হল অসাধারণ একদল নিবেদিত বিচারক, যারা তাদের সামনে দাঁড়ানো সবার সমান অধিকার নিশ্চিতে তাদের সর্বোচ্চটুকু দিচ্ছে। স্বাধীন বিচারবিভাগ এমন একটি বিষয়, যার জন্য আমাদের সবারই কৃতজ্ঞ থাকা উচিত।” কেন্দ্রীয় আদালত ও এর বিচারকদের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের একের পর এক সমালোচনা ও উপহাসের জবাবে এই প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান বিচারপতি মুখ খুললেন বলে জানিয়েছে রয়টার্স। রবার্টসের এ প্রতিক্রিয়ার বিরুদ্ধেও পাল্টা মন্তব্য করেছেন ট্রাম্প।
“দুঃখিত, প্রধান বিচারপতি জন রবার্টস; আপনাদের কাছে এখনো ওবামার বিচারকরা রয়েছেন। তাদের দৃষ্টিভঙ্গির সঙ্গে দেশের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিবর্গের তীব্র পার্থক্য রয়েছে,” টুইটারে বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানে বিচার বিভাগকে আইন ও নির্বাহী বিভাগের সমমর্যাদা দেওয়া হয়েছে। সরকারের ভেতর ক্ষমতার ভারসাম্য তৈরি ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতের জন্যই এ ধরনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।