‘মানুষের মনুষ্যত্ব বিকাশে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই’

62

শিশুর ধারণ ক্ষমতা অনুসারে তাকে শিক্ষা দেওয়া উচিত। অতিরিক্ত বইয়ের বোঝা শিশুকে ছোটকাল থেকে শিক্ষার প্রতি বিমুখ করে তুলছে। তাই শিক্ষকদের সচেতন হতে হবে যাতে শিশুরা আনন্দের সাথে লেখাপড়া শিখতে পারে। মানুষের মধ্যে মনুষ্যত্ব বিকাশে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। তাই আসুন শিশুর ভবিষ্যতের বুনিয়াদ হিসেবে শিক্ষা, সাংস্কৃতিক চর্চা ও খেলাধুলার উপর আমরা গুরুত্বারোপ করি। ভবিষ্যত প্রজন্ম শিক্ষিত হলে আমাদের অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জন সম্ভভ হবে। গত ১২ জানুয়ারি জেএমসেন হলে বিবেকানন্দ বিদ্যানিকেতন ও বিবেকানন্দ সঙ্গীত নিকেতনের ৪র্থ বার্ষিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক্ষক অধ্যাপিকা শায়লা শারমিন উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন। চট্টগ্রাম রামকৃষ্ণ মিশন সেবাশ্রমের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ স্বামী শক্তিনাথানন্দজী মহারাজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন রামকৃষ্ণ-বিবেকানন্দ ট্রাস্টের সম্পাদক তাপস হোড় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ হিন্দু ফাউন্ডেশনের মহাসচিব শ্যামল কুমার পালিত, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলার জহরলাল হাজারী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক সৌমেন দাশ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন রামকৃষ্ণ-বিবেকানন্দ ট্রাস্টের সভাপতি দুলাল কান্তি মজুমদার, বিবেকানন্দ বিদ্যানিকেতনের প্রধান শিক্ষিকা নীলিমা বিশ্বাস ও বিবেকানন্দ সঙ্গীত নিকেতনের অধ্যক্ষ মানু মজুমদার। দুপুর ২টায় প্রায় ২০০ শতাধিক ছাত্র-ছাত্রীর অংশগ্রহণে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় বিচারক মন্ডলীতে ছিলেন চিত্রশিল্পী অধ্যাপক প্রণব মিত্র চৌধুরী ও চিত্রশিল্পী উত্তম কুমার তালুকদার। উপস্থিত ছিলেন প্রকৌশলী পরিমল কান্তি চৌধুরী, অজিত দাশ ও বিকাশ মজুমদার প্রমুখ।
সভাপতির ভাষণে শ্রীমৎ স্বামী শক্তিনাথানন্দজী মহারাজ বলেন শিশুদের প্রথম শিক্ষাই হচ্ছে মায়েরদের হাতে। তাই তিনি মায়েদের প্রাথমিক শিক্ষাই গুরুত্ব দেওয়ার জন্য মায়েদের প্রতি উপদেশ প্রদান করেন। চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় ‘ক’ বিভাগে ১ম হয়েছে প্রাঞ্জন দাশ, ২য় উজ্জয়নী ধর, ৩য় সংযুক্তা বিশ্বাস; ‘খ’ বিভাগে ১ম হয়েছে নিলয় ধর, ২য় আদৃতা সেনগুপ্তা ৩য় আনিকা সাহা বর্ষা এবং ‘গ’ বিভাগে ১ম হয়েছে স্নিগ্ধা দে শৈলী, ২য় অর্ঘ্য ভৌমিক ও ৩য় জয়া সরকার। সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন অধ্যাপক দেবাশীষ রুদ্র। প্রফেসর রীতা দত্তের তত্ত্বাবধানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন- পারমিতা ভট্টাচার্য্য, রহিমা আক্তার, মৌসুমী চৌধুরী, পাপিয়া বিশ্বাস, অজন্তা দে, সর্বানী দস্তিদার, সুপ্রিয়া চৌধুরী, বাপ্পী দাশ, প্রমিত বড়ুয়া, বনানী চক্রবর্তী, প্রিয়ম কৃষ্ণ দে, সুভদ্রা সংযুক্তা সেন, বহিৃ শিখা মজুমদার, স্বপন বড়ুয়া, সঞ্চিতা দস্তিদার, জয় প্রকাশ ভট্টাচার্য্য, ত্রিদীপ বৈদ্য, আশীষ কুমার দে, অরুণ নাথ, পরিতোষ দস্তিদার, কনা আচার্য্য, দীপ্তি মজুমদার, দীপ্ত দত্ত প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি