মাদককে না বলুন সমাবেশে বক্তারা

মাদক আগ্রাসন প্রতিরোধ করতে হলে পরিবারের সচেতনা জরুরি

19

চট্টগ্রাম নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদ আয়োজিত মাদককে না বলুন’ শীর্ষক সমাবেশে সাবেক সেনা প্রধান বীর প্রতীক এম হারুন-অর-রশিদ প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেছেন, মাদক আগ্রাসন প্রতিরোধ করতে হলে পরিবারে সচেতনা খুব জরুরী। প্রত্যেক পিতা-মাতাকে তার সন্তানের প্রতি যত্নশীল হতে হবে। সন্তানের দেখভাল মনোযোগের সহিত দায়িত্ব পালন করতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাদক সেবী নন, মাদক বিক্রেতাদের আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তি দিতে পারলে মাদক আগ্রাসন নির্মুল সম্ভব হবে। এক্ষেত্রে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নিরপেক্ষ ও কঠোর নজরদারির ভূমিকা পালন করতে হবে। প্রধান বক্তার বক্তব্যে বাংলা চলচ্চিত্রের প্রখ্যাত অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান বলেন, মাদক ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশের শত্রু। বাংলাদেশকে মেধাশূন্য করার জন্য কিছু সংখ্যক মাদক ব্যবসায়ী এদেশে মেধাবী ও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের হাতে মাদক তুলে দিচ্ছে।
শিক্ষার্থীদের হাতে বাংলাদেশ পরিচালনার আগামীর চালিকাশক্তি। শিক্ষার্থীদের কখনো ধ্বংস করা যাবে না। চট্টগ্রাম নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদ কার্যকরী সভাপতি আলী আহমেদ শাহিনের সভাপতিত্বে ও সহ-সভাপতি প্রশান্ত বড়ুয়ার সঞ্চালনায় সমাবেশে মুল প্রবন্ধ পাঠ করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ দিদার আশরাফী। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন চসিক প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, চবি’র সিনেট সদস্য ড. মোহাম্মদ রেজাউল কবির, পংকজ বৈদ্য সুজন, স্বপন সেন, দৈনিক সমকালের ডিএমডি সুজিত কুমার দাশ, মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব ফজল আহমদ, মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ এনামুর রশিদ চৌধুরী, অধ্যক্ষ মো. শামসুদ্দীন, অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম খান, সিআরইউ’র সাধারণ সম্পাদক আলমগীর নূর, হাজী মোহাম্মদ সেলিম, মাওলানা মো. মহিউদ্দিন আল কাদেরী, হাজী মো. শাহজাহান, হেফাজত ইসলাম চৌধুরী, কল্পতরু ভট্টাচার্য্য, দিলীপ হোড় ও মামুন। বক্তারা চট্টগ্রাম নগরীতে ১৪টি মদের মহালে ব্যবসায়ীরা অবৈধ ভাবে মদ বিক্রি করে শিক্ষার্থীদের যাপিত জীবনকে বিপন্ন করে তুলেছে। এতে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খোদেজা খুরশিদ অপরাজিতা, আলহাজ সৈয়দ মোহাম্মদ আলী, সাংবাদিক হারুনুর রশিদ, মুক্তিযোদ্ধা মো. নাছির, গীতিকার ফারুক হাসান, শিশু সাহিত্যিক রজমান আলী মামুন, মুকতাদের আজাদ খান, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, মাওলানা জয়নাল আবেদীন চিশতী, মুক্তিযোদ্ধা দয়াল হরি দে, ডা. বরুণ কুমার আচার্য বলাই, মুক্তিযোদ্ধা বাদশা মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা রমিজ উদ্দিন আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা মোজাম্মেল হোসেন, এমএ মারুফ, জান্নাতুল নাঈম রিকু, এড. ফরিদা আক্তার, পারভিন আক্তার চৌধুরী, কবি নুর নাহার নিপা, কবি জান্নাতুল ফেরদাউস সোনিয়া, কারিমা বেগম বিজলী, শারমিন আক্তার, সোমা মুৎসুদ্দী, রিয়াজুর রহমান রিয়াজ, শিব্বির আহমেদ ওসমান, জাকির হোসেন, ইকবাল ভূঁইয়া, ডা. উত্তম কুমার সরকার, ডা. আ ম ম নুরুল হক, মো. ইউনুস ভূঁইয়া, রিমন মুহরী, জাহাঙ্গীর আলম, মোহাম্মদ হোসেন মিন্টু, কাজী আইয়ুব, জামাল উদ্দিন কান্টু, ওসমান গনি, শিল্পী নারায়ন দাশ, নুরুল হুদা, একরাম রানা, বিধান বড়ুয়া প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি