মাইকেলে লন্ডভন্ড ফ্লোরিডা, নিহত ২

3

বাড়িঘর ডুবিয়ে, শত শত গাছ উপড়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার উত্তর পশ্চিমে তান্ডবলীলা চালিয়েছে দদানবীয়’ ঘূর্ণিঝড় মাইকেল। ধ্বংসস্তুপে চাপা পড়ে এক শিশুসহ দুইজন নিহত হয়েছে। ঝড়টি এখন ক্রান্তীয় ঝড়ে পরিণত ক্যারোলাইনার দিকে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। এ হারিকেনের আঘাতে সমুদ্র তীরবর্তী শহরগুলোতে তাৎক্ষণিক বন্যা দেখা দেয়। ঝড়ের পূর্বাভাসের পরেও কয়েকটি স্থানে রয়ে যাওয়া মানুষেরা বন্যাকবলিত হয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ফ্লোরিডাসহ অ্যালাবামা ও জর্জিয়ার অসংখ্য বাড়িঘর।
বুধবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় ফ্লোরিডার প্যানহ্যান্ডেলে আঘাত হানে হারিকেন মাইকেল। গাছ পড়ে সেখানে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া, জর্জিয়ার সেমিনোল কাউন্টিতে ১১ বছরের একটি মেয়ে মারা গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ধেয়ে যাওয়ার পথে মাইকেলের দ্রুত শক্তি অর্জন আবহাওয়াবিদদেরও বিস্মিত করেছে। রোববার ক্রান্তীয় নিম্নচাপ হিসেবে যাত্রা শুরু করা ঝড়টি মঙ্গলবারই দুই মাত্রার হারিকেনে পরিণত হয়।

বুধবার ঘণ্টায় ১৫৫ মাইল গতির বাতাস নিয়ে আঘাত হানার সময় এর মাত্রা ছিল পাঁচের প্রায় কাছাকাছি।
ফ্লোরিডায় আঘাত হানার আগে এটি মধ্য আমেরিকার দেশগুলোতেও ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। ঘূর্ণিঝড়টির তান্ডবে নিকারাগুয়া, হন্ডুরাস ও এল সালভাদরে অন্তত ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। মাইকেলের নিয়ে আসা তীব্র বাতাসে গাছ উপড়ে যুক্তরাষ্ট্রের উপকূলীয় এলাকার প্রায় আড়াই লাখ বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। স্কুল-কলেজসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সরকারি কার্যালয়গুলো বন্ধ রাখা হয়েছে।
১৯৬৯ সালে মিসিসিপি ও ১৯৩৫ সালে লেবার ডে-তে ফ্লোরিডায় আছড়ে পড়া ঝড়ের পর মাইকেলকেই যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখন্ডে আঘাত হানা সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় বলছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। রেকর্ড অনুযায়ী, এর আগে ফ্লোরিডার প্যানহ্যান্ডেলে চার মাত্রার কোনো ঝড় আঘাত হানেনি বলে জানিয়েছেন এনএইচসির আবহাওয়াবিদ ডেনিস ফেল্টজেন।