মহান স্বাধীনতা দিবসের অঙ্গীকার হোক ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসে দূর্যোগ মোকাবেলা করে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়া

14

আজ মহান স্বাধীনতা দিবস। বাঙালির সবচেয়ে বড় অর্জন এ স্বাধীনতা। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর হতে পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী বাঙালিদের দমনে সর্বাত্মক শক্তি প্রয়োগ করতে শুরু করেছিল। কিন্তু স্বাধীন-স্বকীয়তায় বিশ্বাসী বাঙালি কোনকালেই পরাধীনতার শৃঙ্খলায় থাকতে প্রস্তুত ছিল না। ফলে পাকিস্তান শাসকদের বাংলা ভাষা বিরোধী প্রথম আঘাত সাহসের সাথে প্রতিরোধ করেছিল। এরপর বাঙালি থেমে থাকেনি ১৯৫২ থেকে শুরু হওয়া এ আন্দোলন সর্বশেষ ’৬৯-এর গণআন্দোলনে রূপ নেয়, এরপর ’৭০-এর নির্বাচন- যার মধ্য দিয়ে বাঙালি সন্ধান পায় তার গন্তব্যের। ক্রমাগত অসহযোগ আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে বাঙালি উপস্থিত হয় মাহেন্দ্র বর্ষ ১৯৭১-এ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাঙালি তখন জেগে ওঠে মহাবিক্রমে। সমগ্র জাতির চোখ তখন ওই এক তর্জনীর দিকে। বঙ্গবন্ধুর দিকনির্দেশনা নক্ষত্রের মতোই জাতিকে পথ দেখায়, ১৯৭১-এর ৭ মার্চ জাতির চাওয়া ভাষা পেলো সেই ভাষণে, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ এরপর মুক্তিপাগল মানুষ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার চূড়ান্ত প্রস্তুতি শুরু করে।
১৯৭১-এর ২৫ মার্চের বিভীষিকাময় রাতে পাকিস্তানি বাহিনী অস্ত্রের মুখে স্তব্ধ করে দিতে চাইলো বাঙালি জাতির স্বাধীনতার আকাক্সক্ষাকে। কিন্তু না, পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তুললো বাঙালি। ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার মধ্য দিয়ে শুরু হলো ‘যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে’ মুক্তিযুদ্ধ। দীর্ঘ ৯ মাসের সেই যুদ্ধ- তার কত চরিত্র-পার্শ্বচরিত্র, কত ঘটনা-উপঘটনা- মহাকাব্যের বিশালতাকেও হার মানায়। ৩০ লাখ মানুষ শহীদ হলো, সম্ভ্রম হারালো ২ লাখ মা-বোন। অবশেষে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত মিত্রবাহিনীর কাছে পরাজয় মেনে নিতে বাধ্য হলো পাকিস্তানি বাহিনী। এক সাগর রক্তের বিনিময়ে এবং ত্যাগ, তিতিক্ষার মাধ্যমে অর্জিত হলো আমাদের মহান স্বাধীনতা।
কিন্তু ইতিহাসের নির্মম অধ্যায় হলো- স্বাধীনতা লাভের মাত্র সাড়ে ৩ বছরের মাথায় পরাজিত গোষ্ঠী মাথাচাড়া দিয়ে উঠতে শুরু করে। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করা হয়। জেলখানায় হত্যা করা হয় জাতীয় ৪ নেতাকে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধগুলোর মূলে শুরু হয় কুঠারাঘাত। যে প্রত্যয় নিয়ে যুদ্ধ করে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাঙালি জাতি স্বাধীন আবাসভূমি গড়েছিল সেখানে শুরু হয় অপশক্তির নতুন চক্রান্ত। কয়েক দশক ধরে স্বাধীনতার ইতিহাস নানাভাবে বিকৃত করা হয়। নতুন প্রজন্মের সামনে মুক্তিযুদ্ধের ভুলপাঠ হাজির করা হয় ইতিহাস-চেতনা বঞ্চিত একটি প্রজন্ম গড়ে তোলার লক্ষ্যে। আশার কথা, এসবে বিভ্রান্ত না হয়ে নিজের গরজেই তরুণরা বাংলাদেশের শিকড়ের সন্ধান করেছেন। ইতিহাসকে জেনে, ইতিহাসের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে তারাই সবার আগে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও উপযুক্ত শাস্তির দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন। তাদের দাবি পূরণ করেছে বঙ্গবন্ধুর কন্রা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার। আগামী দিনেও মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাসের সামনে দাঁড়িয়ে তারাই দেশকে নেতৃত্ব দেবেন, এ আশা এখন বাস্তব। প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে এ চেতনা অব্যাহত থাকলে সেটি হবে মুক্তিযুদ্ধের শ্রেষ্ঠ অর্জন।
বাংলাদেশ সা¤প্রদায়িকতামুক্ত, স্বাধীনতার চেতনায় উজ্জীবিত, গণতান্ত্রিক, প্রগতিশীল একটি দেশ। এ দেশ স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তি বছরে যখন একটি সমৃদ্ধ মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত হতে যাচ্ছে, তখন বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া মহামারি করোনা ভাইরাস আমাদেরও আক্রমণ করছে। এ আক্রমণ এখনও আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকলেও বৈশ্বিক মহামারির এ দূর্যোগ মোকাবেলায় আমাদের ঐক্যের বিকল্প নেই। এ ঐক্য হতে হবে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতাকামী বাঙালি জাতির প্রাচীরদৃঢ় ঐক্যের ন্যায়। বঙ¦ন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে ঐক্যবদ্ধ হয়ে করোনার মত মহামারি প্রতিরোধই হোক আজকের অঙ্গীকার। আমরা মনে করি, এ মহাসংকটকালীন সময়ে সরকার দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দলের সভানেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সাময়িক মুক্তিদানের মাধ্যমে নতুন সম্ভাবনার দিকে যাত্রা করছে স্বাধীন এ বাংলাদেশ। সরকারের এ সিদ্ধান্ত নিংসন্দেহে ইতিবাচক। সংকটে দেশ ও জাতির ঐক্যের ক্ষেত্রে এটি হতে পারে একটি উৎকৃষ্ট উদাহারণ।
মনে রাখতে হবে, স্বাধীনতা মানে শুধু পরাধীনতা থেকে মুক্তি নয়। স্বাধীনতা হলো স্বাধীন রাষ্ট্রে সার্বভৌম জাতি হিসেবে মাথা তুলে থাকার সব আয়োজন। যেদিন দেশের আপামর জনগণ প্রকৃত অর্থে শান্তিময় ও গণতান্ত্রিক পরিবেশে নিজেদের নাগরিক অধিকার নিয়ে মাথা উঁচু করে বাস করতে পারবে, সেদিনই স্বাধীনতাকে পরিপূর্ণ সফল বলে মনে করা যাবে। স্বাধীনতার ৪৯তম বছরপূর্তির এ সময়ে আমাদের অঙ্গীকার হোক যত দূর্যোগই আসুক, আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধভাবে তা মোকাবেলা করব।