বড়পর্দায় মৃত্তিকা গুণের ‘কালো মেঘের ভেলা’

10

কবি নির্মলেন্দু গুণের রচনা থেকে পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করলেন তার মেয়ে মৃত্তিকা গুণ।‘কালো মেঘের ভেলা’ নামে এই চলচ্চিত্র শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে বড়পর্দায়। রাজধানীর স্টার সিনেপ্লেক্স ও যমুনা বøকবাস্টারে মুক্তি পেয়েছে চলচ্চিত্রটি। নির্মলেন্দু গুণের উপন্যাস ‘কালো মেঘের ভেলা’ অবলম্বনে চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে সরকারি অনুদানে স্বল্পদৈর্ঘ্য আকারে চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করলেও তৃপ্ত হতে পারেননি তিনি। বাবার উপন্যাসকে চলচ্চিত্রে পূর্ণাঙ্গ রূপ দিতেই চলচ্চিত্রটিকে পূর্ণদৈর্ঘ্যে রূপান্তর করেন মৃত্তিকা। তিনি বলেন, “সরকারের অনুদানে চলচ্চিত্রটিকে স্বল্পদৈর্ঘ্য আকারে নির্মাণ করেছিলাম। কিন্তু এক ধরনের অতৃপ্তি কাজ করছিল নিজের মধ্যে। মনে হচ্ছিল, এটিকে পূর্ণাঙ্গ রূপ দিতে হলে পূর্ণদৈর্ঘ্য আকারেই নির্মাণ করতে হবে। সেই চিন্তা থেকেই সরকারের অনুদানের পাশাপাশি ব্যক্তিগত অর্থায়ন থেকে চলচ্চিত্রটিকে পূর্ণদৈর্ঘ্য আকারে দর্শকের সামনে উপস্থাপন করলাম।” নিজের প্রথম চলচ্চিত্রের বড়পর্দায় মুক্তি প্রসঙ্গে মৃত্তিকা বলেন, “আমি খুবই উত্তেজনা অনুভব করছি। এই মুহূর্তেও হলের সামনে দাঁড়িয়ে আছি।
আশা করছি, দর্শক চলচ্চিত্রটি উপভোগ করবেন।” ‘কালো মেঘের ভেলা’ দুখু নামের ছিন্নমূল এক বালকের জীবন চিত্র। শুক্র ও শনিবার বসুন্ধরা সিনেপ্লেক্সে দুপুর ১টা ৫০ মিনিটি এবং সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় দুটি শো হবে। এছাড়া সপ্তাহের বাকি দিনগুলোতে সিনেপ্লেক্সে ছবিটি চলবে প্রতিদিন সকাল ১১টায়, দুপুর ১টায় এবং বিকাল সাড়ে ৫টায়। যমুনা ব্লকবাস্টারে ছবিটির প্রতিদিন দুটি করে প্রদর্শনী চলবে। একটি সকাল ১১টা ৪০ মিনিটে এবং অন্যটি দুপুর ১টা ৪০ মিনিটে। চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্য করেছেন প্রয়াত ফারুক হোসেন। ২০১৫ সাল থেকে নির্মাণ শুরু হওয়া চলচ্চিত্রটির বেশিরভাগ অংশের শুটিং হয়েছে নেত্রকোণার বারহাট্টায় কবি নির্মলেন্দু গুণের গ্রামে। এছাড়া কমলাপুর, পুবাইল, তেজগাঁও বস্তিতে অবশিষ্ট শুটিং হয়।