২০১৭ সালের বিশ্বরাজনীতি একদিকে বিভক্তি-সহিংসতা-ক্ষুধা অন্যদিকে প্রতিরোধের বছর

ব্রেক্সিটের বিচ্ছিন্নতার বিপরীতে বিশ্বাসের ঐক্য

নিজস্ব সংবাদদাতা

18

২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারালেও সর্বোচ্চ আসন নিশ্চিত করে ঝুলন্ত পার্লামেন্ট গড়ে আবারও ক্ষমতায় বসে থেরেসা মে’র নেতৃত্বে কনজারভেটিভরা। ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে বেরিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়ার (ব্রেক্সিট) আনুষ্ঠানিকতা এ বছরই শুরু হয়। ১৫ ডিসেম্বর ব্রাসেলসে ইইউ’র সম্মেলনের শেষদিনে এ নিয়ে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে করা স্মারকের অনুমোদন দেয় ইইউ।
নির্বাচনের ঠিক ১২ দিন আগে দুই দফায় জঙ্গি তা-বে রক্তাক্ত হয়েছে যুক্তরাজ্য। ম্যানচেস্টার আর লন্ডনের সেই হামলার পর থেকে থেরেসা মে জোরসে বলতে শুরু করেছেন মুসলমান সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে। নির্বাচনি প্রচারণার শেষ মুহূর্তে তিনি সরাসরি ‘মুসলিম জঙ্গিবাদ’ শব্দটি ব্যবহার করে বিভক্তির বীজ পুঁতে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন, দরকারে মানবাধিকারের তোয়াক্কা না করে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তির বন্দোবস্ত করার মতো ঘৃণাবাদী অবস্থান নিয়েছেন। বিপরীতে জেরেমি করবিন মূলধারার ব্রিটিশ রাজনীতির প্রথম এবং একমাত্র শীর্ষ নেতা হিসেবে প্রকাশ্যে বলতে পেরেছেন সুস্পষ্ট উচ্চারণে জঙ্গিবাদ তাদের নিজেদের বিদেশনীতির ফল। ভয়ংকর মিথ্যে অজুহাতে সংঘটিত ইরাক যুদ্ধ পরবর্তী গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অবশেষ থেকে জন্ম নেওয়া আইএস-এর সঙ্গে সংলাপের প্রস্তাব দিতেও দ্বিধা করেননি তিনি।