রাউজান আব্দু রশিদ (র.) এর ওরশ মাহফিলে বক্তারা

‘বৃদ্ধাশ্রমের পিতা-মাতার অবাধ্য সন্তানের স্থান জাহান্নামে’

রাউজান প্রতিনিধি

34

বেতাগী দদরবারের সাজ্জাদানশীন পীরে ত্বরিকত আলহাজ আল্লামা গোলামুর ররহমান আশরাফ শাহ (মা.জি.আ) বলেছেন, যে ছেলে মেয়েরা পিতা-মাতার ভরন পোষণ না করে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠিয়েছে সে সন্তানদের ঠিকানা হবে জাহান্নামে।
তিনি বলেন, পিতা-মাতা সন্তানের লালন পালনে যে ত্যাগ করে থাকেন তা পৃথিবীর কেও করবেনা। তিনি আরো বলেন, পিতামাতা বদ নজরে হু শব্দ করলে সন্তানের দুনিয়া আখেরাত দুটিই বরবাদ। তিনি বলেন, বর্তমান কিছু কিছু উচ্চ শিক্ষিত মানুষ দেখা যায় পিতামাতাকে বৃদ্ধশ্রমে পাঠিয়ে তারা বড় বড় দালান কোটা, কিংবা বিলাসিতা জীবন যাপন করে পিতামাতার কথা ভূলে যান। তিনি বলেন, কিন্তু জম্মদাতা পিতামাতাকে অবহেলাকারী সন্তানদেরকে আল্লাহর দরবারে জবাব দিতে হবে। যারা এ ধরনের কাজে জড়িত তাদের স্থান হবে জাহান্নামে। তিনি সকল মানুষকে পিতামাতাকে লালন পালন সহ মা-বাবার পরিপূর্ণ হক আদায় করার আহবান জানান।
তিনি সোমবার রাতে রাউজান এয়াছিন্নগর হযরত আব্দু রশিদ গদা মাওলানা (র) বার্ষিক ওরশ উপলক্ষে বিশাল মাহফিলে প্রধান অতিথির তকরির করছিলেন। পীরে ত্বরিকত আলহাজ আল্লামা অধ্যক্ষ সৈয়দ আহছান হাবিব (মু.জি.আ) সভাপতিত্বে মাহফিলের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন সংগঠক কাইসার হামিদ সাব্বির, মুহাম্মদ জয়নাল আবেদীন ও ইউপি সদস্য তৌহিদুল আলম সহ এলাকাবাসী। এতে উদ্বোধক ছিলেন বিশিষ্ট আলেমেদ্বীন মাওলানা মুহাম্মদ আবছার উদ্দিন। প্রধান বক্তার তকরির করেন সিলেট নূরে হাবিবি ইলাহির পরিচালক আল্লামা এনাম রেজা কাদেরী। বিশেষ বক্তা ছিলেন মাওলানা তরিকুল ইসলাম মাইজভান্ডারী, মাওলানা বাহাউদ্দিন মুহাম্মদ ওমর, মাওলানা ইকবাল হোসেন। এতে মিলাদ কিয়াম পরিবেশন করেন সাংবাদিক মাওলানা এম বেলাল উদ্দিন মাইহভান্ডারী।
উপস্থিত ছিলেন গর্জনীয়া ফাজিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা সাইদুল আলম খাকী, রাজনীতিক জিয়াউল হক চৌধুরী সুমন,মাওলানা সোলাইমান মকবুলী, মাওলানা শফি, হাফেজ মাওলানা জয়নাল আবেদীন, মাওলানা তাজ মুহাম্মদ রেজভী, মাওলানা শাকের উল্লাহ মাওলানা মুহাম্মদ আলী, সংগঠক হাছানুল করিম। পরে আখেরী মোনাজাত ও তাবরুক বিতরণ করা হয়।