বৃত্তি নিয়ে উচ্চশিক্ষা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে চীন

রীমা বড়ূয়া

53

দেশের বাইরে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে জনপ্রিয় দেশগুলোর মধ্যে আছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের নাম। এখন এই দেশগুলোর পাশাপাশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বিশ্বের অন্যতম অর্থনৈতিক পরাশক্তি চীন। উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে চীন জনপ্রিয় হয়ে ওঠার কারণগুলো হলো চীনে পড়াশোনা করতে গেলে আইইএলটিএস স্কোর, স্পন্সরশিপ ইত্যাদির তেমন একটা প্রয়োজন হয় না। তাছাড়া ইউরোপ, আমেরিকার দেশগুলোতে লেখাপড়ার খরচের পাশাপাশি থাকা-খাওয়ার খরচও অনেক বেশি কিন্তু চীনে আনুষঙ্গিক ব্যয় ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলোর চেয়ে অনেক কম। আর চীনে বিশ্বমানের শিক্ষা অর্জনের পাশাপাশি রয়েছে ইংরেজি মাধ্যমে আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা এবং সেই সাথে ক্রেডিট ট্রান্সফারের সুবিধা। চীনে অত্যন্ত কম খরচে উচ্চমানের লেখাপড়াতো করা যায়ই সেইসাথে রয়েছে বৃত্তি নিয়ে সম্পূর্ণ ফ্রী পড়ালেখা, থাকা ও খাওয়ার সুযোগও।
চীনে কলা, বাণিজ্য ও বিজ্ঞানের সব বিষয়ে শিক্ষা গ্রহণ করা যাবে বিশ্ববিদ্যালয়, ইন্সটিটিউটের মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। এগুলোতে অধ্যয়ন করে অর্জন করা যায় ইঞ্জিনিয়ারিং, এমবিবিএস, বিবিএ, এমবিএ, ব্যাচেলর, মাস্টার্স ও পিএইচডিসহ নানা ডিগ্রি।
চীনে উচ্চশিক্ষার্থীরা বৃত্তি নিয়ে যেসব বিষয়ে অধ্যয়ন করতে বা ডিগ্রি নিতে পারবেন সেগুলো হলো প্রকৌশল- এরোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং, এরোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, স্পেস ইনফরমেশন সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি, মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং ইত্যাদি। ব্যবসায় শিক্ষা- ম্যানেজমেন্ট, ফিন্যান্স, একাউন্টিং, বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশন। মানবিক- অর্থনীতি, হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট, ফ্যাশন ডিজাইন। চীনে উচ্চশিক্ষার জন্য ভর্তি হওয়া যায় মার্চ-এপ্রিল এবং সেপ্টেম্বর-অক্টোবর সেশনে।
দেশের অন্যতম প্রাচীন ইমিগ্রেশন বিষয়ক প্রতিষ্ঠান ঐতিহ্যবাহী ‘কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন’ চীনে উচ্চশিক্ষা গ্রহণে আগ্রহীদের ফাইল প্রসেস করছে। কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন এবং ল্যাংগুয়েজ ভার্সিটি-এর চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট ইমিগ্রেশন এক্সপার্ট কাজী মো. আবদুর রহমান স্যার জানান, এদেশের উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করা শিক্ষার্থী যাদের প্রতিটি বিষয়ে আলাদাভাবে শতকরা ৬০ ভাগ নম্বর আছে তারা চীনের শীর্ষস্থানীয় সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ব্যাচেলর ডিগ্রির জন্য বৃত্তি নিয়ে বিনা খরচে পড়াশোনা করতে পারবেন। তাছাড়া বাংলাদেশের বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোর তুলনায় অনেক কম খরচে চীনের সরকারি মেডিক্যাল বিশ^বিদ্যালয়ে এমবিবিএস সম্পন্ন করার সুযোগ আছে। বাংলাদেশের প্রাইভেট মেডিকেল কলেজগুলোতে এমবিবিএস-এ শুধু ভর্তি হতে যা খরচ হয় তার চেয়েও কম খরচে চীনে এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করা যায় বলে জানান তিনি। চীনে এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করা যায় বাংলাদেশে এমবিবিএস-এ ভর্তির জন্য নির্ধারিত রেজাল্ট, বয়স ও শিক্ষাবিরতির চেয়েও কম যোগ্যতায়। বেশি বয়স, দীর্ঘ শিক্ষাবিরতি ও কম রেজাল্টের কারণে যারা এমবিবিএস-এ ভর্তি হতে পারেননি তাদের জন্যও সুবর্ণ সুযোগ রয়েছে। আছে স্কলারশিপসহ সম্পূর্ণ ফ্রি এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জনের সুযোগ। সেদেশে পোস্টগ্র্যাজুয়েশন করারও সুযোগ আছে বলে জানান তিনি।
কাজী মো. আবদুর রহমান স্যার বলেন, ‘চীনে বিশ্ববিদ্যালয় ভেদে বৃত্তির আওতায় রয়েছে শতভাগ টিউশন ফি, হোস্টেল ফি মওকুফ সহ মাসিক স্টাইপেন্ড পাওয়ার সুবিধা। পড়াশোনার মাধ্যম ইংরেজি হওয়ায় আমাদের দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য উচ্চশিক্ষা গ্রহণে ভাষা বিষয়ক সমস্যা হয় না। তাছাড়া চীনে পড়াশোনা করতে যেতে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আইইএলটিএস, পিটিই বা টোয়েফল স্কোরের দরকার হয় না।’ কম রেজাল্ট, দীর্ঘ শিক্ষাবিরতি ও মাত্র এসএসসি বা দাখিল বা সমমানের শিক্ষা থাকলেও চীনে বৃত্তিসহ লেখাপড়ার সুযোগ রয়েছে যা সত্যিই অকল্পনীয় বলে জানান তিনি।
চীনের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাথে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা সহ অনেক দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের বিনিময় কার্যক্রম থাকার ফলে পড়াশোনা সম্পন্ন করার পর চীনে এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশে ক্যারিয়ার গঠনের সুযোগ আছে। সেইসাথে পড়াশোনাকালীন ক্রেডিট ট্রান্সফার করে সহজেই ইউরোপ, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া সহ বিভিন্ন দেশেও যাওয়া যায়। তাই এখন চীনে গিয়ে উচ্চশিক্ষা নিতে আগ্রহীদের সংখ্যা বাড়ছে বলে জানান বিশিষ্ট ইমিগ্রেশন এক্সপার্ট কাজী মো. আবদুর রহমান স্যার।
চীনের কয়েকটি শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়: চীনে বৃত্তি নিয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করা যাবে এমন কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় হলো ঝেংঝাও ইউনিভার্সিটি, কুনমিং ইউনিভার্সিটি, সিচুয়ান ইউনিভার্সিটি, গুইঝাও ইউনিভার্সিটি, সাউদার্ন মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি, চায়না মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি, ক্যাপিটাল মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি, হেবেই মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি, হারবিন ইউনিভার্সিটি, তিয়ানজিন ইউনিভার্সিটি, চুংকিং ইউনিভার্সিটি অভ সায়েন্স এন্ড টেকনোলৌজি, ঝেজিয়াং সাই-টেক ইউনিভার্সিটি, তিয়ানজিন পলিটেকনিক ইউনিভার্সিটি, ইয়াংঝাও ইউনিভার্সিটি, গুইলিন ইউনিভার্সিটি অভ ইলেক্ট্রনিক টেকনোলজি, জিয়াংসু ইউনিভার্সিটি অভ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, জিলিন ইউনিভার্সিটি।
চীনে বৃত্তি নিয়ে উচ্চশিক্ষা নিতে আগ্রহীরা বিস্তারিত জানার জন্য যোগাযোগ করতে পারেন কাজী ইমিগ্রেশন এন্ড এডুকেশন, ভিআইপি টাওয়ার, লেভেল-১, কাজীর দেউড়ি, চট্টগ্রাম।
ফোন – ০১৭২৭২৮৬১১১।
ই-মেইল: kaziimmigration@gmail.com ফেসবুক: www.face:book.com/ kaziimmigration