বিদায় টেনিস সুন্দরী শারাপোভা

16

শরীর আর টানছিল না। কাঁধের চোটটা তার ক্যারিয়ারের সুন্দর সময়টাকেও যেন ভুলিয়ে দিতে বসেছিল। অবশেষে কঠিন সিদ্ধান্তটা নিয়েই ফেললেন মারিয়া শারাপোভা। পাঁচবারের গ্র্যান্ডস্লামজয়ী রাশিয়ান এই টেনিস ললনা ৩২ বছর বয়সে বলে দিলেন বিদায়।
টেনিস ক্যারিয়ারে তার উত্থানটা ছিল বিশ্বকে কাঁপিয়ে। শারাপোভা তখন ১৭ বছরের বালিকা। ২০০৪ সালের উইম্বলডন জিতে রীতিমত হইচই ফেলে দেন। তারপর ক্যারিয়ারে আরও চারবার গ্র্যান্ডস্লাম জিতেছেন। ২০১২ সালের ফরাসি ওপেন ছিল শেষবার।
ক্যারিয়ারে তার সুন্দর সময় যেমন ছিল, ছিল তেমন কলঙ্কও। ২০১৬ সালের ডোপ পজিটিভ হয়ে ১৫ মাসের জন্য নিষিদ্ধ হন রুশ এই টেনিস ললনা। সেই নিষেধাজ্ঞাই ক্যারিয়ারের লাগাম টেনে দিয়েছে।
২০১৭ সালে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে শারাপোভা ফেরেন ঠিকই, কিন্তু তখন থেকেই নিজেকে হারিয়ে খুঁজছিলেন। বেশ কয়েকবার পড়েন চোটে। খারাপ পারফরম্যান্সের কারণে বিশ্ব টেনিস র‌্যাংকিংয়ে ৩৭৩ নম্বরে নেমে যান, ২০০২ সালের আগস্টের পর যেটি ছিল তার ক্যারিয়ারের সর্বনিন্ম।
নামবেনই বা না কেন? তার আগে যে তিনটি গ্র্যান্ড স্লামে প্রথম রাউন্ডের গন্ডিই পার হতে পারেননি শারাপোভা। ক্যারিয়ারের সোনালি সময় অনেক আগেই পেছনে ফেলে এসেছেন। বিদায়বেলায় তাই বললেন, ‘আমি এখন এখানে নতুনের মতো, দয়া করে আমাকে ক্ষমা করবেন। টেনিস, তোমাকে বিদায় বলছি।’
শারাপোভা জানালেন, গত বছর ইউএস ওপেনে সেরেনা উইলিয়ামসের কাছে ৬-১, ৬-১ সরাসরি সেটে হারের পরই বুঝে গিয়েছিলেন, শেষের পথে চলে এসেছেন। ওই বছর পরে আর খেলেননি। সবমিলিয়ে সে বছর কোর্টে নেমেছিলেন মাত্র দুইবার। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের প্রথম রাউন্ডেও ক্রোয়াট ডোনা ভেকিচের কাছে সরাসরি সেটে হেরেছিলেন রুশ টেনিসের লাস্যময়ী এই তারকা।