বিতর্কিত চীন সাগরে উত্তেজনা বাড়িয়ে মহড়ার পরিকল্পনায় যুক্তরাষ্ট্র

13

ক্রমশই উত্তপ্ত হয়ে উঠছে দক্ষিণ চীন সাগর। তারই জের ধরে বিতর্কিত এই অঞ্চলে নিজেদের উপস্থিতির জানান দিতে এবং চীনকে সতর্ক করতে বড় ধরনের শক্তি প্রদর্শনের বিষয়টি পরিকল্পনা করছে মার্কিন নৌবাহিনী। একাধিক মার্কিন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা জানান, এই শক্তি প্রদর্শনের লক্ষ্য থাকবে চীনের সামরিক পদক্ষেপের মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্র যে প্রস্তুত তা মূলত জানানো হবে। এই পরিকল্পনা প্রস্তাব করেছে মার্কিন নৌবাহিনীর প্রশান্ত মহাসাগরীয় নৌ কর্মকর্তারা। এমনটাই জানিয়েছে মার্কিন একাধিক সংবাদমাধ্যম।
খবরে জানানো হয়েছে, প্রস্তাবিত খসড়া পরিকল্পনায় নভেম্বর মাসের এক সপ্তাহে একাধিক অভিযান পরিচালনা করবে প্রশান্ত মহাসাগরীয় নৌবাহিনী। এই অনুশীলনে যুক্ত থাকবে মার্কিন যুদ্ধজাহাজ, যুদ্ধবিমান ও সেনারা। এতে দেখানো হবে যে যুক্তলাষ্ট্র কোন সম্ভাব্য হামলা বিভিন্ন দিক থেকে দ্রæততার সঙ্গে মোকাবেলা করতে পারবে।
পরিকল্পনা অনুসারে, মার্কিন যুদ্ধজাহাজ ও যুদ্ধবিমান দক্ষিণ চীন সাগরে চীনা জলসীমা ও তাইওয়ান প্রণালী নেভিগেশন অপারেশন পরিচালনা করবে। আন্তর্জাতিক জলসীমায় নৌ চলাচলের অধিকারকে ঊর্ধ্বে তুলে ধরবে। এই পরিকল্পনার অর্থ হচ্ছে, মার্কিন জাহাজ চীনা সেনাদের কাছাকাছি থাকবে।
এ ব্যাপারে মার্কিন কর্মকর্তারা গুরুত্ব দিয়ে বলেন, এই মহড়ায় চীনা সঙ্গে সংঘাতে লিপ্ত হওয়ার কোন লক্ষ্য নেই। বছরজুড়েই ওই অঞ্চলে চীন বিভিন্ন অভিযান চালালেও প্রস্তুাবিত পরিকল্পনায় মার্কিন নৌবাহিনীর বিভিন্ন মিশনকে মাত্র কয়েকদিনের মধ্যে একত্রিত করা হবে। অবশ্য প্রস্তাবিত এই পরিকল্পনার কথা সম্পর্কে মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছে মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর। মার্কিন প্যাসিফিক ফ্লিটও মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। অনলাইন বার্তা সংস্থার