বিএফআরআই’র প্রকল্প পরিচিতিমূলক কর্মশালা সম্পন্ন

15

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় নিয়ন্ত্রণাধীন, বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউট কর্তৃক বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ডের অর্থায়নে বাস্তবায়িত “জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবেলার জন্য বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউট, চট্টগ্রাম এলাকায় অবকাঠামোসমূহ উন্নয়ন” প্রকল্পের পরিচিতিমূলক কর্মশালা গতকাল ৯ এপ্রিল বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই) মিলনায়তনে সকালে অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. খুরশীদ আকতারের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন দীপক কান্তি পাল, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (্অতিরিক্ত সচিব), বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট। বিশেষ অতিথি ছিলেন মো. মোখতার আহমেদ, পরিচালক (উপ-সচিব), পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও নেগোসিয়েশন, বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট, মো. আলমগীর, উপ-সচিব, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।
এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন বিএফআরআই এর বন ব্যবস্থপনা উইং এর মুখ্য গবেষণা কর্মকর্তা ড. মো. মাসুদুর রহমান, বাংলাদেশ রাবার বোর্ডের সচিব ড. নাজনীন কাউসার চৌধুরী, চট্টগ্রাম অঞ্চলের বন সংরক্ষক মো. জগলুল হোসেন, রাবার বিভাগ চট্টগ্রাম জোনের মহা ব্যবস্থাপক মো. মোকছেদুর রহমান, পরিবেশ ভবন চট্টগ্রাম এর পরিচালক মোহাম্মদ মোয়াজ্জম হোসাইন সহ বিএফআরআই এর কর্মকর্তা। প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (্অতিরিক্ত সচিব) দীপক কান্তি পাল বলেন, ‘গবেষণা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়নে জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ডের অর্থায়নে প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয় খুবই কম। যেহেতু বিএফআরআই জলবায়ু পরিবর্তন রোধ মোকাবিলায় এবং বন্যপ্রাণীসহ বৃক্ষ প্রজাতি সংরক্ষণে ভূূমিকা রেখে চলেছে তাই এবং এর অবকাঠামো হুমকির সম্মুখিন তাই এর অবকাঠামোসমূহ ও জীব বৈচিত্র্য রক্ষায় এ প্রকল্পটি অবদান রাখবে।’
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মো. আলমগীর বলেন, ‘নির্ধারিত সময়ের ও নির্দিষ্ট বাজেটের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করা একটি চ্যালেঞ্জ। তবে সে চ্যালেঞ্জ সফলভাবে সমাধা করা প্রকল্প পরিচালকের কাজ।’ বিএফআরআই এর মুখ্য গবেষণা কর্মকর্তা ড. মো. মাসুদুর রহমান বলেন, ‘এ প্রকল্পের মাধ্যমে পাহাড় ধস এবং জীব বৈচিত্র্য রক্ষায় শতভাগ সফলতা অর্জন সম্ভবপর হবে। কর্মশালায় উল্লেখিত প্রকল্পটি কেন গ্রহণ করা হলো তার ব্যাখ্যায় প্রকল্প পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘বশ্বিক কার্বনের অতি ক্ষুদ্র অংশ নির্গমন করেও বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুকিপূর্ণ তালিকায় প্রথম সারিতে অবস্থান করছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবিলার জন্য টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা (এসডিজি) এর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ বিএফআরআই ক্যাম্পাসের অবকাঠামো উন্নয়ন ও টেকসই করার লক্ষ্য থেকেই এই ৪ কোটি টাকার প্রকল্পটি হাতে নেওয়া হয়েছে। যার মাধ্যমে বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউটের ক্যাম্পাস এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনসহ এর অবকাঠামোসমূহ রক্ষা করা,পাহাড়ি ভূমি ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ করা, সরকারি সম্পদ রক্ষা করা, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য কর্মসংস্থান তৈরি এবং ভূমি ব্যবস্থাপনা ও বনায়নের মাধ্যমে পাহাড়ি ভূমির ক্ষয় রোধ করা সম্ভবপর হবে।’ বিজ্ঞপ্তি