বাজারে মৌসুমী ফলের সমাহার

চন্দনাইশ প্রতিনিধি

13

ফল খান সুস্থ থাকুন, ভাল ফল দেখে কিনুন, গাছ পাকা ফল খেয়ে স্বাদ নিন। এ সকল বাক্য কারো অজানা নয়। করোনা ভাইরাসে মৌসুমী ফল খেয়ে শরীরকে সুস্থ রাখার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। চন্দনাইশের বাজারে বাজারে এখন মৌসুমী ফল আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু, আনারস, জামরুল, পানিফল, বেল, আতাসহ বিভিন্ন মৌসুমী ফল, দামেও সস্তা। চন্দনাইশের বিভিন্ন বাজারে, এমনকি অলি-গলিতেও এখন মৌসুমি ফলের সমাহার সাজিয়েছে বিক্রেতারা। দামও ক্রেতাদের নাগালে। বিক্রেতারা মৌসুমি ফলের স্বাদ নিতে ক্রেতাদের আগ্রহ বাড়াচ্ছে বিভিন্ন কৌশলে। সরকারের নানামুখী উদ্যোগের কারণে বাজারে মৌসুমি ফলের সহজলভ্যতা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। আষাঢ় মাসেও মৌসুমী ফলের সমাহারের কারণে সাধারণ মানুষ স্বাদ নিচ্ছে হরেক নামের রসালো সুস্বাদু মৌসুমি ফলের। করোনা ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন জেলায় লকডাউন থাকার কারণে প্রথম দিকে আম লিচু কম আসায় দাম ছিল বেশি। লকডাউন শিথিল করাসহ সরকারের কৃষিপণ্য বিশেষ করে মৌসুমি ফল সরবরাহ করা নিয়ে নানা উদ্যোগের কারণেই বাজারে প্রতিনিয়ত মৌসুমি ফল বৃদ্ধি পেয়েছে। চন্দনাইশের পাহাড়ি এলাকায় আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু, আনারস, জামরুল, পানিফল, বেল, আতাসহ বিভিন্ন মৌসুমী ফল প্রচুর পরিমাণে উৎপাদিত হচ্ছে। এলাকার চাহিদা মিটিয়ে চট্টগ্রাম মহানগরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় যাচ্ছে এ সকল স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত মৌসুমী ফল। চন্দনাইশের একাধিক বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারে এখন মৌসুমি ফলের ছড়াছড়ি। দোকানে আম, লিচু ও কাঁঠালের বিপুল সমাহার। এছাড়াও রয়েছে জাম, জামরুল, তালের ডাব, লটকন, কামরাঙা, আনারস। বাজারে এখন সবচেয়ে সুলভ মূল্য ও পছন্দের ফল রসালো আম। রাজশাহী, চাঁপাই নবাবগঞ্জ, সাতক্ষীরার বিখ্যাত আমগুলো এখন চন্দনাইশের বাজারে। বাজারে ল্যাংড়া, রূপালি, হাড়িভাঙা, আম্রপালি জাতের আমগুলো সূলভ মূল্যে পাওয়া যাচ্ছে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা স্মৃতি রাণী সরকার বলেছেন, বর্তমানে বাজারে প্রচুর মৌসুমী ফল রয়েছে, দামও জনগণের নাগালে রয়েছে। করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে বেশি বেশি করে মৌসুমী ফল খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।