চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব বার্ষিক ক্রীড়ার সমাপনী অনুষ্ঠানে রুহুল আমিন

বাংলাদেশ ফুটবলের গৌরব ফেরাতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার প্রয়োজন

24

চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব-সাইফ পাওয়ারটেক বার্ষিক ক্রীড়ার সমাপনী অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণ গতকাল ৬ ডিসেম্বর শুক্রবার ক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে বর্ণিলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।
সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ফুটবল ক্লাব অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি, চট্টগ্রাম চেম্বারের সহসভাপতি ও সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের চেয়ারম্যান তরফদার মো. রুহুল আমিন বলেছেন, ফুটবল খেলা বাঙালির রক্তের সাথে মিশে আছে। জন্মের পর বাচ্চাদের খেলনা থেকে শুরু করে এমন কোনো জায়গা ছিলো না যেখানে ফুটবলের রাজত্ব ছিলো না। গত ১২ বছর আগেও বিশ্ব ফুটবলে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৪০/১৪২ তম, বর্তমানে সেই অবস্থান গিয়ে পৌঁছেছে ১৮৭ তম স্থানে। যেখানে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল, সেখানে ফুটবলের এমন দৈন্যতা কোনোভাবে মানা যায় না। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে আমাদের সবাইকে সম্মিলিতভাবে এগিয়ে আসতে হবে। ঝিমিয়ে পড়া ফুটবলকে প্রাণবন্ত করতে আমি ইতোমধ্যে দেশের প্রায় প্রতিটি জেলায় ব্যক্তিগতভাবে কাজ করে যাচ্ছি। অনেক জেলায় কার্যক্রমও শুরু করেছি। আশা করি, সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা ফুটবলের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হবো। একদিন বাংলাদেশের ফুটবল বিশ্বে সম্মানজনক একটি স্থান করে নেবে।
তিনি আরও বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের ক্রিকেট দাঁড়িয়ে গেছে। কিন্তু ফুটবলের এখনো কোনো ভিত্তি দাঁড়ায়নি। দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার অভাবে কিংবা ফুটবলের সাথে সংশ্লিষ্ট কিছু ব্যক্তির দুরদর্শীতার অভাবে এমন হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন এই ক্রীড়া সংগঠক। সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের চেয়ারম্যান তরফদার রুহুল আমিন আরো বলেন, বাংলাদেশের জনসংখ্যার শতকরা প্রায় ৬৫ ভাগ হচ্ছে যুবসমাজ। এই বিশাল জনগোষ্ঠীকে খেলাধুলাসহ গঠনমূলক নানা কাজে লাগাতে পারলে দেশ আরো অনেকদূর এগিয়ে যাবে।
চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাসের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সমাপনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাবের ক্রীড়া সম্পাদক দেবাশীষ বড়–য়া দেবু। বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি সালাহউদ্দিন মো. রেজা এবং চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল।
প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সহসভাপতি তরফদার মো. রুহুল আমিন আরো বলেন, বন্দর অপারেট ছাড়াও আমাদের বেশ কিছু ব্যবসা রয়েছে এই চট্টগ্রামে। আর বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র হচ্ছে এই চট্টগ্রাম। আমার বেশিরভাগ ব্যবসা-বাণিজ্য যেহেতু চট্টগ্রামকেন্দ্রিক, তাই চট্টগ্রামের সাথে আমার একটি আত্মার সম্পর্ক সৃষ্টি হয়েছে। সেই আত্মিক টানে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে আমরা নিরলসভাবে কাজ করে চলেছি।
এর আগে প্রধান অতিথিকে প্রেস ক্লাবরে পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও সম্মাননা স্মারক তুলে দেন প্রেস ক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাসসহ নেতৃবৃন্দ। এ সময় সহ-সভাপতি মনজুর কাদের মনজু, অর্থ সম্পাদক দেবদুলাল ভৌমিক, গ্রন্থাগার সম্পাদক রাশেদ মাহমুদ, সমাজসেবা ও আপ্যায়ন সম্পাদক মো. আইয়ুব আলী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী এবং কার্যকরী সদস্য মোহাম্মদ শামসুল ইসলাম, স ম ইব্রাহীম, মোহাম্মদ আলী এবং সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেডের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ প্রেস ক্লাবের বিপুল সংখ্যক সদস্য সপরিবারে উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানের শেষে প্রধান অতিথি, সভাপতি এবং ব্যবস্থাপনা কমিটির কর্মকর্তারা ক্রীড়া প্রতিযোগিতার বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। বিজ্ঞপ্তি