বাঁশখালীতে কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক

36

বাঁশখালীতে আমেনা বেগম (১৮) নামে সরকারি আলাওল ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। গত শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে পৌরসদরের আস্করিয়া পাড়া নিজ বাড়িতে তার মৃত্যু হয়। অস্বাভাবিক মৃত্যুর আলামত পাওয়ায় লাশের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। তবে ময়নাতদন্ত করতে নেয়ার সময় লাশ আটকানোর চেষ্টা করে ছাত্রীর পরিবার ও সহপাঠীরা। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠিচার্জ করে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয় পুলিশ।
বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. সালাহউদ্দিন পূর্বদেশকে বলেন, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করা হয়। পরিবারের পক্ষ থেকে মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে কিছুই স্পষ্ট করতে পারেনি। হাসপাতালের চিকিৎসক মৃত্যুর কারণ অস্বাভাবিক মনে করায় লাশ ময়নাতদন্ত করা হয়। সকালে ময়নাতদন্ত করতে লাশ এম্ব্যুলেন্সে করে শহরে নেয়ার সময় কিছু মানুষ বাধা দেয়। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়। এ ঘটনায় আপাতত একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হবে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন আসলেই পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
স্থানীয়রা জানান, আমেনা বেগম পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ডের আস্করিয়া পাড়ার নুরুল ইসলামের মেয়ে। গত সাতমাস আগে একই এলাকার মো. ওবায়দুল নামে এক ছেলের সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে স্বামীসহ নিজ বাড়িতেই থাকতেন আমেনা। আমেনার স্বামী একসময় দক্ষিণ আফ্রিকা থাকলেও বর্তমানে দেশেই আছেন।
ঘটনার পর থেকে আমেনার স্বামী ওবায়দুলের মোবাইল ফোনে বেশ কয়েকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। আমেনার খালাতো বোন রুমি আক্তার বলেন, আমেনা গতরাতেও সুস্থ ছিল। রাতে নিজ বাড়ির বাইরে প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে মাথা ঘুরে পড়ে যায়। পরে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তার অতিরিক্ত রক্তচাপের সমস্যা ছিল।
সরকারি আলাওল কলেজের এক শিক্ষক বলেন, আমেনা মানবিক বিভাগের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। লাশ দেখে স্বাভাবিক মৃত্যু মনে হয়নি। গলা ও হাতের তালুতে একধরনের দাগ দেখা গেছে। আশা করি ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদ্ঘাটিত হবে।