প্রধানমন্ত্রিত্বের লড়াইয়ে নামছেন থাই রাজকন্যা

11

থাইল্যান্ডে আগামী মাসে অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রিত্বের লড়াইয়ে নামছেন থাই রাজা মহা ভাজিরালংকর্ন-এর বোন উবলরত্ন রাজকন্যা সিরিভাদানা বারনাভাদি। থাইল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী থাকসিন সিনাওয়াত্রার দল থাই রাকসা চার্ট পার্টির হয়ে সামরিক জান্তা সরকারের প্রধান প্রায়ুথ চ্যান ওচার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন তিনি। শুক্রবার থাই রাকসা চার্ট পার্টি এ ঘোষণা দিয়েছে। উবলরত্ন থাই রাজপরিবারের প্রথম কোনও সদস্য হিসেবে প্রধানমন্ত্রিত্বের লড়াইয়ে নামছেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন থেকে এসব কথা জানা গেছে। থাকসিন সিনাওয়াত্রা ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। ২০০৬ সালে এক সামরিক অভ্যুত্থানে তিনি ক্ষমতাচ্যুত হন। এরপর প্রায় ১০ বছর ধরে তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ে স্বেচ্ছা নির্বাসনে আছেন। তার বোন ইংলাক সিনাওয়াত্রা পরে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী হন। ২০১৪ সালে ইংলাককেও ক্ষমতাচ্যুত করে সামরিক বাহিনী। জান্তা সরকারের প্রধানমন্ত্রী হন প্রায়ুথ চ্যান ওচা।
সামরিক জান্তা সরকার থাকসিনের দল পিউ চার্ট পার্টিকে ভেঙে দেওয়ার হুমকি প্রদানের পর থাই রাকসা চার্ট পার্টি নামে ছোট পরিসরে আরেকটি দল গড়ে তোলে তারা। থাকসিন নির্বাসনে থাকা অবস্থাতেই দলটিকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। থাই রাজকন্যা উবলরত্ন’র সঙ্গে থাকসিনের ভালো সম্পর্ক রয়েছে। প্রধানমন্ত্রিত্বের লড়াইয়ে নিজেদের প্রতিনিধি হিসেবে শুক্রবার এ উবলরত্নের নাম ঘোষণা করেছে থাই রাকসা চার্ট পার্টি।
৬৭ বছর বয়সী উবলরত্ন বর্তমান থাই রাজা ভাজিরারংকর্ন-এর বড় বোন এবং প্রয়াত রাজা ভূমিবলের বড় মেয়ে। ১৯৭২ সালে এক বিদেশিকে বিয়ে করার পর রাজ মর্যাদা ত্যাগ করেন তিনি। তবে এখনও তাকে রাজ পরিবারের সদস্য হিসেবেই বিবেচনা করা হয়। ঐতিহ্যগতভাবে থাই রাজ পরিবারকে রাজনিতর ঊর্ধ্বে বিবেচনা করা হলেও এর ভীষণরকমের প্রভাব রয়েছে।