নোবেল বিজয়ী লুইস গ্লাকের দু’টি কবিতা

প্রথম তুষার

14

পৃথিবী ঘুমোতে যায় এক শিশুর মতো
অথবা এমন গল্প বয়ে যায়।

কিন্তু আমি ক্লান্ত নই, ইহা বলে।
এবং মা বলে, তুমি হয়তো ক্লান্ত নও, কিন্তু আমি ক্লান্তÑ

তুমি তা দেখতে পারো তার মুখাবয়বে, প্রত্যেকে পারে।
অতঃপর তুষারপাত হোক, ঘুম এসে যাক
যেহেতু মায়ের পীড়ায় মৃত্যুর দিকে তার জীবন
এবং চায় নীরবতা।

লুইন গ্লাক ১৯৪৩ সালে নিউইয়র্ক সিটিতে জন্মগ্রহণ করেন। লং আইল্যান্ডে তার বয়োবৃদ্ধি। তিনি লেখাপড়া করেন সারাহ লরেন্স কলেজ ও কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে। আমেরিকার সাম্প্রতিক গুণবিচারী ও মনস্বী কবিদের অন্যতম তিনি।
প্রায়োগিক নৈপুর্ণ্য, সংবেদনা এবং নৈঃসঙ্গ, পারিবারিক সম্পর্ক, বিচ্ছেদ এবং মৃত্যুর অর্ন্তদৃষ্টি গøাকের কবিতার প্রতিপাদ্য। তার কবিতা সম্পর্কে কবি রবার্ট হাস বলেন, “সবচেয়ে খাঁটি এবং চূড়ান্ত গুণান্বিত লিরিক কবিদের একজন এখন লিখছেন।” তিনি এ বছর (২০২০) সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। “তার কবিতা অভ্রান্ত কাব্যিক কণ্ঠ, যা সাদামাটা সৌন্দর্য সৃষ্টি করে ব্যক্তিক অস্তিত্বের সর্বজনীনতায়।”
লূইস গ্লাক-এর সাম্প্রতিক কাব্য-‘ফেইথফুল অ্যান্ড ভেরিয়াস নাইট লাভ করে ন্যাশনাল বুক অ্যাওয়ার্ড। ‘পয়েমস’ পায় লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস বুক প্রাইজ।
লুইস গ্লাক-এর অন্যান্য কবিতার বইয়ের মধ্যে রয়েছে-দ্য হাউস অব মার্শল্যান্ড, দ্য গার্ডেন, ডিসেন্ডিং ফিগার, অভিলেজ লাইফ ইত্যাদি।
গ্লাক এখন ইয়েল ইউনিভার্সিটির ‘রাইটার ইন রেসিড্যান্স’ এবং বসবাস করেন ম্যাসাচুসেট্্স-এ।