পোশাক শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ১৬ হাজার টাকা করার দাবি

47

পোশাক শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ১৬ হাজার টাকা করাসহ বেশ কয়েকটি দাবি জানিয়েছে গার্মেন্টস-টেক্সটাইল শ্রমিক ফোরাম।
শুক্রবার রাজধানীর তোপখানা রোডে নির্মল সেন মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির আহবায়ক শহীদুল ইসলাম সবুজ তাদের বিভিন্ন দাবি তুলে ধরে কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
তিনি জানান, দাবি আদায়ে ২৪ এপ্রিল রানা প্লাজা ধসের বার্ষিকীতে ওই ভবন মালিকের বিচার ও আহত শ্রমিকদের চিকিৎসার দাবিতে সাভার বাজারে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে গার্মেন্টস-টেক্সটাইল শ্রমিক ফোরাম।
এছাড়া ১ মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসে শ্রমিক সমাবেশ, মে মাস জুড়ে পোশাক কারাখানা অঞ্চলগুলোতে সভা-সমাবেশ বিক্ষোভ মিছিল এবং ২০ মে ‘সোহাগ দিবস’ পালন করা হবে বলে শহীদুল ইসলাম জানান।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, “গার্মেন্টস মালিকরা শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি দেয় না, তারা অব্যাহতভাবে শ্রমিকদের শ্রম আর মজুরি চুরির নতুন নতুন কৌশল বের করেন। ফলে শ্রমিক ও তার পরিবারের লোকজন বস্তির অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বসবাস, অর্ধাহারে-অনাহারে পুষ্টিহীনতায় জীবনযাপনে বাধ্য হন।”
সরকারি শ্রমিক ও পোশাক শ্রমিকদের বেতন বৈষম্যের চিত্র তুলে ধরে সবুজ বলেন, সরকারি চাকরিতে সর্বনিম্ন বেতন এখন ১৭ হাজার ৩৬২ টাকা। আর পোশাক শ্রমিকদের সর্বন্ম্নি মজুরি পাঁচ হাজার ৩০০ টাকা।
“আমরা বিভিন্নভাবে হিসেব করে দেখেছি, একজন শ্রমিকের পরিবারের সদস্যসহ মাসে সর্বনিম্ন ২৮ হাজার ৬২০ টাকা দরকার। তারপরও সার্বিক বিবেচনায় সরকার ও মালিকপক্ষের কাছে ন্যূনতম মজুরি ১৬ হাজার টাকা দাবি করছি।”
তাদের অন্র দাবিগুলো হল- শ্রমিক-কর্মচারীদের নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্র ও সার্ভিস বই প্রদান এবং যখন-তখন শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধ করা; শ্রম আইন থেকে ‘শ্রমিক স্বার্থবিরোধী’ ধারাগুলো বাতিল; শিল্প এলাকায় শ্রম আদালত গঠন এবং তিন মাসের মধ্যে এসব মামলার নিষ্পত্তি করা; শ্রমিক যৌন নিপীড়নবিরোধী নীতিমালা প্রণয়ন; কারখানায় নারী শ্রমিকদের জন্য আলাদা ও পর্যাপ্ত টয়লেটের ব্যবস্থা করা; সবেতনে ছয় মাসের মাতৃত্বকালীন ছুটি; রানা প্লাজা ধসের দিন ২৪ এপ্রিল জাতীয়ভাবে ‘শ্রমিক হত্যা দিবস’ পালন এবং ওইদিন কারখানায় ছুটি ঘোষণা; তাজরীন ও রানা প্লাজার মালিকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি; কারখানাগুলোতে আধুনিক অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা কার্যকর করা এবং ক্ষতিপূরণ আইন সংশোধন; শ্রম আইন অনুযায়ী দিনে আট ঘণ্টার বেশি কাজ করানো বন্ধ করা।
অন্যদের মধ্যে গার্মেন্টস-টেক্সটাইল শ্রমিক ফোরামের নেতা মিন্টু মিয়া, শাহ আলম হোসাইন, শাহ মির্জা, তমিজ উদ্দিন হোসেন, খোরশেদ আলম সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে ২৪ এপ্রিলকে ‘পোশাক শ্রমিক শোক দিবস’ ঘোষণা ও রানা প্লাজা ধসে শ্রমিক নিহতের ঘটনায় দায়ীদের শাস্তির দাবিতে শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছে জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন।
সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মো. মোস্তাক, সাংগঠনিক সম্পাদক গাজী মো. নূরে আলমসহ নেতৃবৃন্দ এ কর্মসূচিতে অংশ নেন। বার্তা সংস্থার খবর