পিট-ডিক্যাপ্রিওকে ঘিরে উন্মাদনার ঢেউ

10

হলিউডের দুই হার্টথ্রব ব্র্যাড পিট ও লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিওকে ঘিরে কানসৈকতে উন্মাদনার ঢেউ উঠলো। মঙ্গলবার পালে দে ফেস্তিভাল ভবনের সামনে লালগালিচায় তারা পা রাখতেই হৈ-হুল্লোড় শুরু হয় সাধারণ দর্শকদের মধ্যে। প্রেস রুমের কাচের দরজা, সড়কের সামনে ব্যারিকেড, সামনের উঁচু ভবনের ব্যালকনিসহ সবখানে স্মার্টফোনের ক্যামেরা চলছিল অবিরাম। পিট ও ডিক্যাপ্রিও গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরের ঢোকার সিঁড়িতে দাঁড়াতেই চিৎকার শুরু করে দেয় তরুণ-তরুণীরা। তারাও হাত নেড়ে সবার ভালোবাসায় সাড়া দেন। কানের ৭২তম আসরের মূল প্রতিযোগিতা বিভাগে নির্বাচিত ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন…হলিউড’ ছবির প্রচারণায় এসেছেন পিট ও ডিক্যাপ্রিও। এর পরিচালক কোয়েন্টিন টারান্টিনোকে ঘিরেও সবার কৌতূহল ছিল তুঙ্গে। তাদের সঙ্গে ছিলেন অভিনেত্রী মার্গট রোবি। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে ছবিটির উদ্বোধনী প্রদর্শনী হয়। এটি দেখার জন্য প্রয়োজন ছিল ইনভাইটেশন। এর আগে বিকাল সাড়ে ৪টায় পালে দে ফেস্তিভাল ভবনের একপাশে অবস্থিত সাল দুবুসিতে প্রেস স্ক্রিনিং হয়। তখন বিভিন্ন দেশের সংবাদকর্মীদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। তাদের দীর্ঘ লাইন পাশের ক্যাসিনো পেরিয়ে সাগরপাড়ে গিয়ে ঠেকে।
পালে ভবনের তিন তলায় সাল বাজিনে সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় আবারও সাংবাদিকদের জন্য ছিল ছবিটির প্রদর্শনী। তখন লাইন ছুঁয়ে ফেলে তেরেস দে জার্নালিস্টস অংশ। এছাড়া সড়কে চলচ্চিত্রানুরাগীদের হাতে হাতে ইনভাইটেশন চেয়ে দাঁড়িয়েছিলেন অনেকে। সব মিলিয়ে উৎসবের অষ্টম দিনে জমে উঠেছে কান। ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন…হলিউড’কে বলা যায় ষাটের দশকের আমেরিকান চলচ্চিত্র শিল্পের স্বর্ণযুগের শেষ সময়ের প্রতি কোয়েন্টিন টারান্টিনোর ভালোবাসার চিঠি। মূল প্রতিযোগিতায় শেষ মুহূর্তে যুক্ত হয়েছে এটি। এজন্য সম্পাদনায় টানা কয়েক মাস ব্যয় করেছেন টারান্টিনো। ছবিটির মাধ্যমে পাম দ’রের দৌড়ে আছেন তিনি। এটি তার নবম ছবি। ২৫ বছর আগে কানের সর্বোচ্চ এই পুরস্কার জেতেন তিনি।