পাঠক হৃদয়ে বেঁচে থাকবে দৈনিক পূর্বদেশ

অধ্যাপক রতন কুমার তুরী কলেজ শিক্ষক

25

হাঁটি হাঁটি পা পা করে চট্টগ্রামের দৈনিক পূর্বদেশ পত্রিকাটি আট বছরে পা রাখলো। এই স্বল্প সময়ের মধ্যে পত্রিকাটি অগণিত পাঠকের হৃদয় ছুঁয়েছে। এক ঝাঁক মেধাবী সাংবাদিকদের নিয়ে এখন থেকে আট বছর আগে পত্রিকাটি যে স্বপ্ন নিয়ে যাত্রা গুরু করেছিল তার বেশির ভাগই আজ পূরণের পথে। নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশনা আর চট্টগ্রামের জনদুর্ভোগের বিষয়সমূহ জনগণসহ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণের মাধ্যমে পূর্বদেশ পত্রিকাটি আজ প্রথম সারির পত্রিকায় ওঠে এসেছে। পূর্বদেশ পত্রিকার কিছু অসম সাহসী সাংবাদিক তাদের মেধার বিকাশ ঘটিয়ে চট্টগ্রামের প্রান্তিক পর্যায় থেকে এমন কিছু সংবাদ তুলে এনেছেন যা কল্পনা করা যায়না। ক্রাইম রিপোর্ট, দুর্নীতি বিরোধী সংবাদ, রাজনৈতিক টানা পোড়েনের সংবাদ ইত্যাদি বিষয়ে পূর্বদেশ পত্রিকার আয়োজন ছিল দেখার মতো। এর বাইরে সাপ্তাহিক আয়োজন সাহিত্য বিষয়ক বিভিন্ন লেখকদের বিদগ্ধ লেখনি, উপসম্পাদকীয় পাতায় চট্টগ্রামসহ দেশের নামকরা লেখকদের লেখা, শিক্ষা বিষয়ক আয়োজন, শিশুদের জন্য ছড়ার পাতাসহ আরো অসংখ্য সুন্দর সুন্দর আয়োজন পাঠকপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে। তাছাড়া পত্রিকাটির প্রতিদিনের বারো পৃষ্ঠার আয়োজনে সবসময় থাকে ভরপুর। এর বাইরেও পত্রিকাটিতে প্রতিদিনই কিছু না কিছু নতুনত্ব আনছে। চট্টগ্রামের সাধারণ পাঠকদের কথা চিন্তা করে পত্রিকাটি সবসময়ই রঙিন কলেবরে প্রকাশিত হচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে পূর্বদেশ পত্রিকাটি ২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর বাঁশখালীর কৃতি সন্তান মাস্টার নজির আহমদ প্রতিষ্ঠা করেন। পত্রিকাটির প্রতিষ্ঠাতা মাস্টার নজির আহমদ ছিলেন দক্ষিণ চট্টগ্রামের একজন প্রাজ্ঞ ব্যক্তি।
তার দানশীলতা সর্বজনবিদিত। তিনি তার নামে ‘মাস্টার নজির আহমদ কলেজ’ সহ অসংখ্য প্রতিষ্ঠান গড়ে গেছেন। মাস্টার নজির আহমদ সাহেব একজন শিক্ষক ছিলেন বিধায় তিনি সৃজনশীল কর্মকান্ডের মাধ্যমে সবার মাঝে বেঁচে থাকতে চেয়েছিলেন। সেসময়ে জনাব মাস্টার নজির আহমদ সাহেব চাইলে তার আয়কৃত টাকা আরো কোনো বেশি লাভজনক জায়গায় খাটাতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা নাকরে পত্রিকার মত একটি সৃজনশীল জায়গায় তার কষ্টার্জিত টাকা খাটিয়েছিলেন। যা পরবর্তীতে তাকে ব্যাপক সম্মান এনে দিয়েছিল। প্রকৃতপক্ষে পত্রিকাটির প্রতিষ্ঠাতা জনাব নজির আহমদ সাহেব পত্রিকাটি প্রকাশের মাধ্যমে চট্টগ্রামে একটি সৃজনশীলতার আন্দোলন গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। ২০১২ সালে পত্রিকাটি প্রকাশের সাথে সাথেই চট্টগ্রামে এক আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। নতুন পত্রিকা হিসেবে অনেকেই ধরে নিয়েছিল এই পত্রিকার তেমন কাটতি হবেনা কিন্তু সকলের আশংকাকে মিথ্যা প্রমাণ করে পত্রিকাটি সেদিন তার নিজস্ব আসন দখল করে নিয়েছিল। তারপর বর্তমানে পত্রিকাটি তার পথচলা আরো অবারিত করেছে। পাঠকপ্রিয়তায় সিক্ত হয়ে তার অভীষ্ঠ লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে পত্রিকাটির নিয়মিত আয়োজনের মধ্যে রয়েছে- প্রথম পাতা, শিক্ষা-বাণিজ্য, নিখিল চট্টগ্রাম, গাঁও গেরাম, পাঠকের চিঠি, সম্পাদকীয়, চেরাগ নগর, পরদেশ, মাঠে ময়দানে। পত্রিকাটির সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বে আছেন জনাব মুজিবুর রহমান আমরা পত্রিকাটির এই নিরন্তর পথচলা আরো সার্থক হবে বলে প্রত্যাশা করছি।