পর্যটকদের পদচারণায় মুখর রাঙামাটির আরণ্যক আইল্যান্ড

এম.কামাল উদ্দিন, রাঙামাটি

17

পর্যটকদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে রাঙামাটির আরণ্যক আইল্যান্ড পিকনিক স্পট। ঈদকে ঘিরে এবার আরণ্যকে পর্যটকদের ভিড় জমে। ঈদের পরের দিন স্থানীয় লোকজন ও ঢাকা-চট্টগ্রাম থেকে আগত পর্যটকরা ভিড় জমান সেনাবাহিনী রাঙামাটি রিজিয়ন পরিচালিত এই পিকনিক স্পটে। এখানে রয়েছে মৎস্যকন্যা, ওয়াটার সুইমিংপুল, ওয়াটার মোটরবাইক, ওয়াটার সাম্পান, ওয়াটার বোট ও শিশুদের জন্য আলাদা আইল্যান্ড ওয়াটার পার্ক।
সেনা সূত্রে জানা গেছে, এই বিনোদন স্পট স্থাপনে কয়েক কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে হয়েছে। অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে পরিত্যক্ত পাহাড়-টিলা পরিস্কার করে বিনোদনের উপযোগি করা হয়েছে। পিকনিক স্পটে লাগানো হয়েছে বিভিন্ন ধরনের গাছগাছালি। এখানকার বৈচিত্রময় পরিবেশ দেখতে প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক ভিড় জমাচ্ছে। পরিকল্পনা রয়েছে মনোরম পরিবেশে আরো আকর্ষণীয় ও দৃষ্টিনন্দন পিকনিক স্পট গড়ে তোলার। সেনাবাহিনী এই সেবা পর্যটকদের কাছে পৌঁছে দিতে চায়।
চট্টগ্রাম থেকে আসা পর্যটক শিল্প পুলিশের এসআই মো.রফিকুল ইসলাম ভুইয়া ও খাদিজা ইসলাম ভুইয়া জানান, রাঙামাটিতে আমাদের আত্মীয়-স্বজন রয়েছে। সেই সুবাদে এখানে ঘুরতে আসা। আরণ্যকের পরিবেশ আমাদের মুগ্ধ করেছে। পরিবার-পরিজন নিয়ে ঘুরে বেড়াতে অনেক ভাল লেগেছে। পর্যটকদের জন্য নিরিবিলি পরিবেশ ও নিরাপত্তাবেষ্টিত পিকনিক স্পট এটি। এখানে নির্ভয়ে পরিবার নিয়ে ঘুরে বেড়ানো যায়। একবার এলে বার বার আসতে ইচ্ছে হবে। আইল্যান্ডে ঘুরে অনেক আনন্দ করেছে শিশুরা।
রাঙামাটিতে পর্যটন স্পট রয়েছে অনেকগুলো, কিন্তু পর্যটকদের আকর্ষণ করেছে দৃষ্টিনন্দন আরণ্যক। রাঙামাটির একমাত্র পুরোনো পিকনিক স্পট ঝুলন্ত সেতু পানির নিচে থাকায় আরণ্যকে পর্যটকের আগমন বেড়ে যায়। শহরে ঢোকার মুখেই সেনা রিজিয়নের পাশে আরণ্যকে জলে ও স্থলে ঘুরে বেড়িয়ে ঈদের আনন্দ উপভোগ করছেন পর্যটকরা।