ভোক্তা অধিকার দিবসের সেমিনারে বিভাগীয় কমিশনার

পণ্যে ভেজাল রোধে সচেতন হতে হবে ভোক্তাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক

35

চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান বলেছেন, ভোক্তার অধিকারের মর্ম আমরা বুঝি না। সমাজ, দেশ ও জাতিকে ধ্বংস করার জন্য খাদ্যে ভেজাল দেওয়া হচ্ছে। ভোক্তাদেরকে সচেতন হতে হবে। ভোক্তা অধিকার আইনের প্রয়োগ সন্তোষজনক নয়। ভোক্তাদেরকে সচেতন করার জন্য ক্যাবকে আরো বেশি উদ্যোগী হতে হবে। অসাধু ব্যবসায়ীদেরকে বেশি লাভ করার মানসিকতা ত্যাগে বাধ্য করতে হবে। আপনার সাথে সরকার আছে। ভেজাল মৃত্যুর কারণ হবে, তা মেনে নেওয়া যায় না। আসুন, আমরা আগামী দিনগুলোতে ভেজাল ব্যবসায়ীদের বিরদ্ধে সোচ্চার হই। ৭২ শতাংশ শিক্ষিতের দেশের মানুষ ভেজাল মেনে নিতে পারে না ।’
বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত ‘ডিজিটাল বাজার ব্যবস্থায় অধিকতর স্বচ্ছতা ও ন্যায্যতা নিশ্চিতকরণ’ শীর্ষক সেমিনারে গতকাল বৃহস্পতিবার তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। জেলা প্রশাসন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম ও কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ’র (ক্যাব) উদ্যোগে এ সেমিনার সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত হয়।
বিভাগীয় কমিশনার আরো বলেন, ‘জনসংখ্যার আধিক্যের দেশে ভেজাল খাবার উৎপাদন ও বিক্রি বেশি হয়। বিশ্বে ভোক্তাদের সচেতন করতে যত কাজ হয়েছে, বাংলাদেশে তত কাজ হয়নি। তবে পার্শ¦বর্তী ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকাসহ অন্যান্য দেশের আগে আমাদের দেশে ভোক্তা অধিকার আইন প্রণয়ন ও কার্যকর হচ্ছে।
প্রাণ আরএফএল উৎপাদিত ম্যাংগো জুসের সমালোচনা করে আবদুল মান্নান বলেন, ‘আমি ফেসবুকে ভিডিওতে দেখেছি, এ জুস খুবই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি হয়। কিন্তু তারা এতো বেশি প্রচার ও আকর্ষণ করছে যে, প্রাণ থেকে আমরা নতুন প্রজন্মের প্রাণকে রক্ষা করতে পারছি না। ’
ক্যাব নেতা ইকবার বাহার ছাবেরীর সঞ্চালনায় সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের উপ পরিচালক প্রিয়াংকা দত্ত। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক নাসরিন আক্তার। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সিএমপি উপ-কমিশনার কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনাল, ওমেন চেম্বারের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আবিদা মোস্তফা, ক্যাব চট্টগ্রামের সভাপতি এসএম নাজের হোসাইন প্রমুখ।