একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়

নাশকতার প্রতিরোধে আ.লীগের বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি

9

৯নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড আ.লীগ : ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়কে কেন্দ্র করে মহানগর আওয়ামী লীগ কর্তৃক ঘোষিত অবস্থান কর্মসূচি পালনের অংশ হিসেবে ৯নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্দ্যেগে এক বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি গত ১০ অক্টোবর পালন করা য়েছে। ৯নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আহবায়ক এসএম আলমগীর, যুগ্ম আহবায়ক সরোয়ার মোরশেদ কচি ও যুগ্ম আহবায়ক ও ৯নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. জহুরুল আলম জসিমের নেতৃত্বে এক বিক্ষোভ মিছিল ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় প্রদক্ষিন শেষে আকবর শাহ থানা আওয়ামী লীগ কর্তৃক এ কে খান মোড়ে নির্ধারিত অবস্থান কর্মসুচিতে অংশগ্রহণ করে। বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ইলিয়াছ খান, সাবেক যুগ্ম আহবায়ক গোলাম মোস্তফা, মো. মুজিবুর রহমান হাওলাদার, মো. আলী আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মোশারফ হোসেন দুলাল, মো. জসিম উদ্দিন, শামসুল হক শামু, মোস্তফা মিয়া, আবদুল মোনাফ মাস্টার, শ্রী স্বপন কুমার দাশ, মো. জুলফিকার আলী মাসুদ, মো. মমিনুল হক, মো. কাউসার, মো. জাহাঙ্গীর কবির নয়ন, মো. হোসেন, মো. শামীম আহমেদ সুমন, খোকন সেন, আবু সুফিয়ান, বেলাল উদ্দিন জুয়েল, বেলাল আহমেদ সরকার, আনিছ চৌধুরী রাজন, শফিকুল ইসলাম ওয়াসিম, আবু নোমান নাহিদ, আবদুল মান্নান, মোস্তাফিজুর রহমান রোকন, দীপ্তি রাণী প্রমুখ।
আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ মহানগর শাখা : একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়ের সমর্থনে মহানগর আওয়ামী লীগ ঘোষিত নগরীর বিভিন্ন্ স্থানে অবস্থান কর্মসূচী ধারাবাহিকতায় আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার উদ্যোগে বিএনপির দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র ও রায় পরবর্তী নাষকতা প্রতিরোধের লক্ষ্যে বিক্ষোভ মিছিল নিউমার্কেট হইতে নগরীর বিভিন্ন্ গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিনের পর মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ আহবায়ক এড.এ এইচ এম জিয়া উদ্দিনের সভাপতিত্বে নিউমার্কেট চত্তরে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ যুগ্ম আহবায়ক চট্টগ্রাম উন্ন্য়ন কতৃপক্ষের বোর্ড সদস্য কে. বি. এম সাহজাহান, যুগ্ম আহবায়ক সালাউদ্দিন আহম্মেদ, সদস্য সাদেক হোসেন চৌধুরী পাপ্পু, সত্যজিৎ চক্রবর্তী সুজন, নুরুল কবির, আনোয়ারুল ইসলাম বাপ্পি, পংকজ চৌধুরী , জিয়া আমানত নয়ন প্রমুখ। উক্ত সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে বিপন্ন করার জন্য জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুসহ সপরিবারের হত্যাকারীদের বিচারের লক্ষ্যে ১৯৯৬ সালে বর্তমান প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ সরকার গঠন করলে জিয়াউর রহমানের নির্দেশীত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিলের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতাকারী রাজাকার ও বঙ্গবন্ধুসহ স্বপরিবারের হত্যার বিচারের ঘোষণা দিলে বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দেশী ও বিদেশীদের নিয়ে ষড়যন্ত্র করে ২০০১ সালে আবারো কক্ষমতায় আসার পর যোদ্ধাপরাধী ও বঙ্গবন্ধুর খুনীদের বাচাঁনোর জন্য তাঁর কুপুত্র তারেক রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের জনসভায় তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দ্যেশে প্রকাশ্যে গ্রেনেট হামলা করে। এতে আওয়ামীলীগ নেত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জন নেতা কর্মীর হত্যাকারী প্রধান হোতা তারেক জিয়ার জাবতজীবন বাতিল করে ফাঁসির রায় প্রদান করে আতি সত্তর কার্যকর করার আহবান জানান। বিএনপি জামাত জোটের সকল নাষকতা প্রতিরোধ করে নৌকার বিজয় সুনিশ্চত করতে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ শেখ হাসিনার ভ্যানঘাটের ভূমিকা পালন করতে সভায় নেতৃবৃন্দ উদাত্ত আহবান জানান। বিজ্ঞপ্তি