ভাল্লুকখাইয়া স্কুলের প্রধান শিক্ষককে প্রত্যাহারের দাবি

নারী শিক্ষিকাকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে মামলা

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি

33

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ভাল্লুকখাইয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠায় এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের নাম নুরুল ইসলাম। কর্মস্থলে অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, অন্যায়ভাবে কমিটি বাতিলসহ বেশ কিছু অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। নতুনভাবে যুক্ত হয়েছে শিক্ষার্থী নির্যাতন, একই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকের উপর হামলা ও নারী শিক্ষিকাকে অনৈতিক প্রস্তাবের অভিযোগ। সম্প্রতি তার এসব অভিযোগের বিষয়ে সরেজমিন তদন্ত করেছেন উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে গঠিত শিক্ষা কমিটির তিন সদস্যের টিম।
স্থানীয়রা জানান- প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম ইতোপূর্বে ফৌজদারি মামলায় অভিযুক্ত হয়ে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছিলেন। জামিনে এসে চাকরিতে পুনঃবহালের পর তার অনৈতিক অবস্থার কোন পরিবর্তন হয়নি। বর্তমানে তিনি হত্যা মামলাসহ অন্তত ৬টি মামলার এজাহারভুক্ত আসামী।
স্কুলের নারী অভিভাবক জয়গুন বিজি, সোস্তফা খাতুন, রশিদা বেগম, হাজেরা খাতুন জানান- বিতর্কিত প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলামকে স্কুল থেকে প্রত্যাহার করা না হলে তাদের ছেলে মেয়েদের স্কুলে আসা বন্ধ করে দিবেন। তাদের অভিযোগ- প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম স্কুলে যোগদানের পর নানা বিতর্কের সৃষ্টি করে স্কুলের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করেছেন। প্রধান শিক্ষক স্কুলে শিক্ষার উন্নয়নের চেয়ে নিজের উন্নয়নে ব্যস্ত থেকেছেন সবসময়। এক্ষেত্রে উপজেলা শিক্ষা অফিসও অভিযুক্ত নুরুল ইসলামের বিষয়ে নীরব থেকেছেন।
অভিভাবক হাসিনা বেগম, মমতাজ বেগম জানান- প্রধান শিক্ষকের নির্যাতনের কারণে ছেলে মেয়েরা স্কুলে আসতে চান না। স্কুল থেকে তাকে প্রত্যাহার করা না হলে ছেলেমেয়েদের আর স্কুলে পাঠাবেন না। স্কুল কমিটির পিটিআই সভাপতি ফরিদুল আলম বলেন- ‘গত বিশ বছর পিটিআই সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। কিন্তু আমি প্রধান শিক্ষকের দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় সম্প্রতি তাকে মিথ্যা একটি মামলার আসামী করা হয়েছে বলে দাবী করেন। ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচিত সভাপতি ইছহাক জানান- দুর্র্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকায় সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে ম্যানেজিং কমিটি বাতিল করেন প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম। কমিটি বাতিলের বিষয়ে তাকে কিছু জানানোও হয়নি।
স্কুলের ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণীর দুই ছাত্রী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান- প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম প্রায় সময় ক্লাসে তাদের শরীরে হাত দেন। বাথরুমে পানি নিতে বলে কয়েকজন ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করারও চেষ্টা করেন। যদিওবা অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন- সহকারী রফিক তার উপর হামলা করে ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করছে বলে দাবী করেন তিনি। এছাড়াও বিতর্কিত এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে একই স্কুলের নারী শিক্ষিকাকে অনৈতিক প্রস্তাব ও সহকারী শিক্ষককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় সম্প্রতি বান্দরবান জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলামের বিরুদ্ধে একটি মামলাও দায়ের হয়েছে।
এদিকে সম্প্রতি বিতর্কিত ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সরেজমিনে তদন্ত করা হয়েছে। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা সুকান্ত কুমার সেনের নেতৃত্বে তদন্তটিমের অন্য দুই সদস্য হলেন- উপজেলা প্রকৌশলী তোফাজ্জল হোসেন ও মৎস্য অফিসার জাহাঙ্গির আলম।
তদন্তকালে উপস্থিত সাংবাদিকদের তারা বলেন- ‘উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশক্রমে আমাদের তদন্তভার দিয়েছেন’। প্রকৃত ঘটনার বিষয়ে শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী, অভিভাবক ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের কাছ থেকে মতামত নেয়া হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন- তদন্তে প্রাথমিক ভাবে কিছু বলার সুযোগ নেই। আমরা যা পেয়েছি তা উপস্থাপন করব।