নারীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠার গল্পে ‘বতর’

46

বালুর জাহাজের সালাম সরদার। ঘাটে ঘাটে ঘুরে নারী সঙ্গ ছাড়া দিন কাটে না তার। একদিন সকালে নদীর ঘাটে এক কুমারীকে দেখে সরদার তার পিছু নেয়। গোপনে তার বাড়িটি চিনে আসে। পরদিন সরদার সেই বাড়িতে ওই কুমারীর খোঁজে যায়। ঘরের সামনেই বসা ছিলো কুমারী মেয়েটির মা ফুলবানু। সরদারকে দেখেই ফুলবানু হতচকিত। প্রায় ১৬ বছর আগে সরদারের সঙ্গে তার ঘটে যাওয়া স্মৃতি দৃশ্যপটে ভেসে ওঠে।
এমনই গল্পে নির্মিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘বতর- দ্য সিজন’। ইডিপাসের নাটক থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেছেন তরুণ নির্মাতা অমৃতাভ মিহির। এর কাহিনী, চিত্রনাট্য ও সংলাপও তার। এতে অভিনয় করেছেন মুশফিক আরিফ ও তানিয়া। অন্যান্য চরিত্রে রয়েছেন পংকজ দেবনাথ, সুদীপা এবং মিম। শনিবার (২০ জানুয়ারি) মিহির বলেন, গ্রিক পুরাণে ঈশ্বরের অভিশাপে মায়ের সঙ্গে পুত্রের প্রণয় নিয়ে নিয়তির বাস্তবায়ন হচ্ছে রাজা ইডিপাস। যাকে বলা হয় ইডিপাস কমপেক্স। আর ভাই বোনের প্রণয়কে বলা হয় ইলেক্ট্রা কমপেক্স। আমার গল্পে কোনো কমপেক্স ভাবার আগেই তুলে ধরা হয়েছে- মানুষ অন্যায় করবে, মানুষই শাস্তি পাবে। তাই ‘বতর’র বার্তা হচ্ছে প্রবৃত্তির নিয়ন্ত্রণ আর নারীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠা।
মাটিয়ালের ব্যানারে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটির চিত্রায়ন হয়েছে বরগুনার বিভিন্ন স্থানে। জানুয়ারির শেষের দিকে বরগুনা শিল্পকলা একাডেমিতে বড় পর্দায় ‘বতর’র উদ্বোধনী প্রদর্শনী হবে। একইদিন নির্মাতা মিহিরের ‘দ্য নাইট গার্ড’ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটিও প্রদর্শিত হবে।